রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০২:০০ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
সরকারী খাল দখল করে দোকান ঘন নির্মান, পুলিশ কর্মকর্তার ভাই বলে কথা কলাপাড়ায় ৯৬ বছরেও সাবরেজিষ্ট্রী অফিসের দুর্দশা কাটেনি পটুয়াখালীতে সাইদুলের ব্যালেন্স শূন্য চেক দিয়ে ৭ লাখ সত্তর হাজার টাকা প্রতারণার অভিযোগ, বিচারের আশায় কোর্টের বারিন্ধায় স্বরূপকাঠির আটঘর- কুডিয়ানার উন্নয়নের রূপকার চেয়ারম্যান শেখর সিকদারকে আবারও চায় ইউনিয়নবাসীরা বানারীপাড়ায় বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকী পালিত পিরোজপুরে দুই ভুয়া মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা গ্রেপ্তার ভোলা-বরিশাল সড়কের সংস্কারের দাবিতে লক্ষ্মীপুরে বিক্ষোভ ২৪ ঘন্টায় বরিশাল বিভাগে আক্রান্ত ৭৩, মোট ৬২৫৫ সিফাতের মুক্তি দাবীর মানববন্ধনে পুলিশের হামলা, শিক্ষার্থীদের মারধর ভোলায় হাত-পা বেঁধে বৃদ্ধকে গোবর খাইয়ে নির্যাতন
‘নবী’ দাবি করার অপরাধে আদালতেই গুলি করে হত্যা

‘নবী’ দাবি করার অপরাধে আদালতেই গুলি করে হত্যা

নিজেকে ‘শেষ নবী’ দাবি করে ধর্ম অবমাননাকারী এক ব্যক্তিকে পাকিস্তানে আদালত কক্ষের ভেতরেই গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল বুধবার পেশওয়ারের একটি আদালতে মামলার শুনানি চলার সময়ই তাহির আহমেদ নাসিম নামের ওই ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়।

নিরাপত্তা বাহিনী জানিয়েছে, ধর্ম অবমাননাকারী ওই ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে ছয়টি গুলি চালানো হয়। এ ঘটনায় হামলাকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিবিসি, আল জাজিরাসহ একাধিক আন্তজর্তিক গণমাধ্যম জানিয়েছে, নিজেকে নবী দাবি করে ধর্ম অবমাননা করার অভিযোগে ২০১৮ সাল থেকে পুলিশি হেফাজতে ছিলেন নাসিম। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, নিজেকে ‘নবী’ দাবি করে ব্লাসফেমি আইন ভঙ্গ করেছেন তিনি। নাসিমের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় ব্লাসফেমি আইনের ২৯৫-এ, ২৯৫-বি এবং ২৯৫-সি ধারা ভঙ্গের অভিযোগ আনা হয়।

অভিযোগে বলা হয়, নিজেকে ‘নবী’ দাবি করে ইসলাম ধর্মের মহানবী হযরত মুহাম্মদকে (সা.) অবমাননা করেছেন তিনি। আইন অনুযায়ী, এ অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রয়েছে।

স্থানীয় প্রশাসন জানায়, হামলার পরপরই ঘটনাস্থল থেকে হামলাকারীকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি দোষ স্বীকারও করেছেন।

পাকিস্তানে ধর্মীয় অবমাননা আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। যদিও এখন পর্যন্ত কাউকে সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হয়নি। তবে ১৯৯০ সাল থেকে বিভিন্ন সময় অভিযুক্তদের ওপর হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়েছে কমপক্ষে ৭৭ জনকে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com