শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
আন্তর্জাতিকভাবে বয়কটের মাধ্যমে ফ্রান্সের ঔদ্ধত্যের সমুচিত জবাব দেয়া হবে: চরমোনাই বরিশাল বিভাগে ৭২ জনের করোনা শনাক্ত, ১ জনের মৃত্যু পটুয়াখালীতে দুই কিশোরীর প্রেম, পালিয়ে যাওয়ার পথে র‌্যাবের হাতে ধরা শতবর্ষের পুরানো বিবির পুকুরকে ঘিরেই প্রসারিত হয় বরিশাল নগরী বরিশাল রেঞ্জ আন্তঃজেলা ক্রিকেট প্রতিযোগীতা উদ্ধোধন বঙ্গবন্ধুর পরিবার নিয়ে কটুক্তি : বহিষ্কার হতে পারে ববি শিক্ষার্থী সেশন জট মুক্ত শিক্ষার দাবিতে পটুয়াখালীতে মানবন্ধন বাকেরগঞ্জে ৮ নারীর ধর্ষক সেই হীরার বিচার দাবিতে ছাত্র-যুবসমাজের বিক্ষোভ বরিশালে খালের উপর অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিলো প্রশাসন বরিশালে নির্মিত হবে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
আসলেই ক্ষতিকর ই-সিগারেট

আসলেই ক্ষতিকর ই-সিগারেট

লাইফস্টাইল: সিগারেটের মতো দেখতে না হলেও সিগারেটের বিকল্প হিসেবেই ই-সিগারেটের আবির্ভাব। ফ্যাশনেবল হওয়ায় ব্যাটারিচালিত এই যন্ত্রটিতে প্রায়ই টান দিতে দেখা যায় বর্তমান তরুণদের।
লিথিয়াম ব্যাটারির মাধ্যমে কার্টিজে থাকা নিকোটিন, স্বাদ ও গন্ধমিশ্রিত ই-লিকুইড ও প্রপিলিন গ্লাইকল নামক রাসায়নিক পুড়িয়ে মস্তিষ্কে ধূমপানের মতো অনুভূতির সৃষ্টি করে ই-সিগারেট।
গত কয়েক বছর ধরেই তরুণদের মধ্যে ই-সিগারেটের জনপ্রিয়তা তুঙ্গে। অনেকে সিগারেটের বিকল্প হিসেবে কিংবা সিগারেট ছাড়তে হাতে তুলে নিয়েছে এই ডিজিটাল ভ্যাপিং ব্যবস্থা।
বলা হয়ে থাকে ধূমপানে আসক্তি কমাতে ও সিগারেটের দৌরাত্ম্য ঠেকাতে তামাকবিহীন ই-সিগারেট তুলনামূলক ভালো সমাধান হতে পারে। কিন্তু গবেষণা বলছে ভিন্ন কথা।
ই-সিগারেটে রয়েছে কার্সিনোজেনিক রাসায়নিক পদার্থ। যা ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার অন্যতম কারণ। এছাড়াও ই-সিগারেটে থাকা রাসায়নিক পদার্থ ফুসফুসের রোগ ও শ্বাসযন্ত্রে ইনফেকশন ঘটাতে পারে বলে দাবি করছেন গবেষকেরা।
তামাক থাকে না বলে সাধারণভাবেই মনে হতে পারে সিগারেটের চেয়ে ই-সিগারেট কম ক্ষতিকর। কিন্তু সাধারণ সিগারেটের মতোই ই-সিগারেটেও থাকে ক্ষতিকারক নিকোটিন। তাই এটা মনে করার কোনো কারণ নেই যে ই-সিগারেট আপনার নেশা কাটাবে। বরং গবেষকেরা বলছেন, তরল-নিকোটিন সিগারেটের মতোই আপনাকে নেশাগ্রস্ত করে ফেলতে পারে।
ফলে যারা ট্র্যাডিশনাল ধূমপান এড়াতে তামাক ছেড়ে ই-সিগারেট ধরছেন তারাও স্বাস্থ্যের দিক থেকে মোটেও নিরাপদে নন। আর আপনার আশেপাশের লোকজনও নিরাপদ নয়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com