বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:০৭ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
মিথ্যা বলছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প- জো বাইডেন

মিথ্যা বলছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প- জো বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী কমলা হ্যারিস বৈধ নন বলে মন্তব্য করেছেন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। তার এ মন্তব্যের কড়া জবাব দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট পদে ডেমোক্রেট দল থেকে মনোনীত জো বাইডেন।  মঙ্গলবার তিনি কমলা হ্যারিসকে মনোনীত করার ঘোষণা দেন। উল্লেখ্য, কমলা হ্যারিস যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করেছেন। তাকে মনোনয়ন দেয়ার পরই সমালোচনা তীব্র হয়েছে। একে ডেমোক্রেটরা বর্ণবাদ বলে মনে করছে। শুক্রবার ট্রাম্পের কড়া সমালোচনা করেন জো বাইডেন। তিনি বলেন, ডেমোক্রেট দল থেকে ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী কমলা হ্যারিসের বৈধতা সম্পর্কে জঘন্য মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।
বৃহস্পতিবার ট্রাম্প বলেন, আমি জানতে পেরেছি, তিনি (কমলা) প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ করতে পারছেন না।

তার রিপাবলিকান দলের একজন আইনের প্রফেসরকে উদ্ধৃত করে ট্রাম্প এ কথা বলেন। ওই প্রফেসর কমলা হ্যারিসের জন্মের সময় তার পিতামাতার অভিবাসন স্ট্যাটাস নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

উল্লেখ্য, কমলা হ্যারিসের (৫৫) জন্ম ক্যালিফোর্নিয়ার ওকল্যান্ডে। তার পিতা জ্যামাইকান এবং মা ভারতীয়। জো বাইডেনের মুখপাত্র অ্যানড্রু বেটস এক বিবৃতিতে বলেছেন, ট্রাম্প বর্ণবাদের উস্কানি দিচ্ছেন এবং আমাদের জাতিকে ছিন্নভিন্ন করে দিচ্ছেন। তিনি জঘন্য, বর্ণবাদী জন্ম বিষয়ক ইস্যু সৃষ্টি করেছেন। ট্রাম্প এই ধারার আশ্রয় নিয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বিরুদ্ধেও মিথ্যা কথা বলেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ট্রাম্প অভিযোগ করেছিলেন, বারাক ওবামা যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করেন নি। তাই এমন জঘন্য কথাবার্তা বলা হবে এতে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই। এর মধ্য দিয়ে তিনি নিজেকেই যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের মাঝে বোকা বানিয়ে ফেলছেন।
যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের ২ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্সি পদের জন্য যোগ্য হতে হলে একজন ব্যক্তিকে প্রাকৃতি নিয়মে যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণকারী নাগরিক হতে হবে অথবা যুক্তরাষ্ট্রের একজন নাগরিক হতে হবে। ১৪তম সংশোধনীর ২ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণকারী সবাই অথবা যুক্তরাষ্ট্রে প্রাকৃতিকীকৃত ব্যক্তি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com