শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৫:১৪ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
আন্তর্জাতিকভাবে বয়কটের মাধ্যমে ফ্রান্সের ঔদ্ধত্যের সমুচিত জবাব দেয়া হবে: চরমোনাই বরিশাল বিভাগে ৭২ জনের করোনা শনাক্ত, ১ জনের মৃত্যু পটুয়াখালীতে দুই কিশোরীর প্রেম, পালিয়ে যাওয়ার পথে র‌্যাবের হাতে ধরা শতবর্ষের পুরানো বিবির পুকুরকে ঘিরেই প্রসারিত হয় বরিশাল নগরী বরিশাল রেঞ্জ আন্তঃজেলা ক্রিকেট প্রতিযোগীতা উদ্ধোধন বঙ্গবন্ধুর পরিবার নিয়ে কটুক্তি : বহিষ্কার হতে পারে ববি শিক্ষার্থী সেশন জট মুক্ত শিক্ষার দাবিতে পটুয়াখালীতে মানবন্ধন বাকেরগঞ্জে ৮ নারীর ধর্ষক সেই হীরার বিচার দাবিতে ছাত্র-যুবসমাজের বিক্ষোভ বরিশালে খালের উপর অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিলো প্রশাসন বরিশালে নির্মিত হবে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
উপযুক্ত সময়ে উপযুক্ত কর্মসূচি দেওয়া হবে: মওদুদ

উপযুক্ত সময়ে উপযুক্ত কর্মসূচি দেওয়া হবে: মওদুদ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, উপযুক্ত সময়ে উপযুক্ত কর্মসূচি দেওয়া হবে। গতকাল বুধবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মওদুদ আহমদ। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন নোয়াখালীর সাবেক সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতারা। ব্যারিস্টার মওদুদ বলেন, ঈদের ছুটিতে নোয়াখালীর নিজ বাড়িতে অবরুদ্ধ হওয়া দলীয় কোন্দলে নয়, হয়েছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের ইশারায়। শুধু নোয়াখালী নয়, সারা দেশেই বিএনপি নেতাকমীদের ওপর চলছে দমন পীড়ন। তবে এ অবস্থা আর বেশি দিন চলবে না। মওদুদ আহমদ বলেন, শুধু নিয়মতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে কোনো স্বৈরাচারী সরকারকে পৃথিবীর কোথাও অপসারণ করা সম্ভব হয়নি। সুতরাং এ দেশেও সেটা সম্ভবপর হবে না। সেই উপলব্ধি থেকে উপযুক্ত সময়ে উপযুক্ত কর্মসূচি দেওয়া হবে এবং সে কর্মসূচি সফল হবে এবং বাংলাদেশে একটি সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচন হবে। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা এবং তার জন্য প্রয়োজন হলে যে আন্দোলনের কর্মসূচি আমরা এতদিন দিয়ে এসেছি, সেটা আমাদেরকে পরিবর্তন করতে হবে। এমন কর্মসূচি দিতে হবে, যে কর্মসূচি কার্যকর কর্মসূচি হবে। যার মাধ্যমে আমরা তাকে মুক্ত করে আনতে পারব। জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দ- নিয়ে পাঁচ মাস ধরে কারাগারে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এই মামলায় আপিল করে তিনি জামিন পেলেও অন্য মামলায় গ্রেফতার দেখানোয় তার মুক্তি আটকে আছে। গত ফেব্রুয়ারিতে কারাগারে যাওয়ার আগে খালেদা জিয়া নিয়মতান্ত্রিক কর্মসূচি চালিয়ে যেতে বলেছিলেন দলীয় নেতাদের। এরপর বিএনপির আর কঠোর কোনো কর্মসূচি আসেনি। নির্বাচন পর্যন্ত খালেদার কারামুক্তি সরকার ঠেকিয়ে রাখবে আশঙ্কা থেকে এখন জোরালো কর্মসূচি দেওয়ার কথা বলছেন বিএনপির বিভিন্ন নেতা। পাশাপাশি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবি মানতে সরকারকে বাধ্য করতেও আন্দোলনের কথা বলছেন তারা। মওদুদ বলেন, শুধু ওই নিয়মতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে কোনো স্বৈরাচারী সরকারকে পৃথিবীর কোথাও অপসারণ করা সম্ভবপর হয়নি। সুতরাং এদেশেও এটা সম্ভবপর হবে না। এই উপলব্ধি থেকে উপযুক্ত সময়ে উপযুক্ত কর্মসূচি দেওয়া হবে, সেই কর্মসূচি সফল হবে এবং দেশে একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আন্দোলন গড়তে সরকারের বাধা পাওয়ার ধারণা করে সাবেক মন্ত্রী মওদুদ বলেন, তারা (সরকার) বিএনপিকে মাঠে নামতে দেবে না, রাস্তায় নামতে দেবে না। এটাই তাদের উদ্দেশ্য। আমরা বলতে চাই, এর জবাব আমরা ইনশাল্লাহ দেব। আর অল্প কিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে। যে ধরনের আন্দোলনে অতীতে স্বৈরাচারী সরকারের পতন হয়েছে ১৯৬৯ সালে এবং ১৯৯০ সালে। সেই ধরনের আন্দোলনই বাংলাদেশে হবে, বলেন ৯০ এর আন্দোলনে পতন ঘটা সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদের তখনকার সঙ্গী মওদুদ। নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয় ঈদের সময় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নিজের বাড়িতে মওদুদকে অবরুদ্ধ করে রাখার প্রতিবাদ জানাতে। জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর পরিচালনায় এই সংবাদ সম্মেলনে বৃহত্তর নোয়াখালীর সাবেক সাংসদ বরকতউল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান, জয়নুল আবদিন ফারুক, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, মাহবুব উদ্দিন খোকন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, এ বি এম আশরাফ উদ্দিন নিজান, রেহানা আখতার রানু, নাজিম উদ্দিন আহমেদ বক্তব্য রাখেন। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বর্তমান সংসদ সদস্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ইন্ধনে পুলিশ মওদুদকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিল বলে বিএনপি নেতাদের অভিযোগ। তবে কাদের এই অভিযোগ নাকচ করে বলেছেন, স্থানীয় বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে মওদুদের নিরাপত্তার জন্য তার বাড়িতে পুলিশ গিয়েছিল। তাকে অবরুদ্ধও করা হয়নি, আর এতে আওয়ামী লীগেরও কোনো ভূমিকা ছিল না। সংবাদ সম্মেলনে খোকনসহ বিএনপি নেতারা বলেন, বর্ষীয়ান নেতা মওদুদ আহমদকে পুলিশ অবরুদ্ধ করে রেখেছিল ওবায়দুল কাদেরের নির্দেশেই। রাজনীতির সহবস্থানের ঐতিহ্য নষ্ট করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। ঈদের দিনের দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে না দেওয়া, বড় মসজিদের ঈদের জামাতে নামাজ পড়তে বাধা পাওয়ার অভিযোগ করেন মওদুদ। তিনি বলেন, পুলিশ আমাকে বাড়িতে অবরুদ্ধ করে রেখে ছিলো। আমার বাড়ির সামনে একটি ট্রাক আড়াআড়ি করে রেখে দিয়েছিল। আজকে ওবায়দুল কাদেরের পায়ের নিচে মাটি নেই। তিনি এখন মিথ্যা কথা বলছেন। ঈদের দিনের ঘটনার পেছনে ওবায়দুল কাদেরই দায়ী। পুলিশই আমাকে বলেছে যে, ‘স্যার আমাদেরকে কোনো দোষ দিয়েন না। আমরা উপরের হুকুমে করছি’। সাবেক মন্ত্রী মওদুদের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. ইলিয়াছ শরীফ বলেন, সুনির্দিষ্ট গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে নিরাপত্তাজনিত কারণে মওদুদ আহমদের বাড়ির সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল। ওঁর নিরাপত্তার স্বার্থেই উনাকে সন্ধ্যার পর বাড়ি থেকে বের হতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছিল। ‘উপরের নির্দেশের’ কথা অস্বীকার করে পুলিশ সুপার বলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ একজন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী, তিনি একজন বড় রাজনৈতিক নেতা। তার নিরাপত্তার বিষয়টি আমাদের দেখতে হয়। এখানে কোনো উপরের হুকুমের ব্যাপার ছিল না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com