বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বরিশাল অঞ্চলের ২৭ নৌপথে ৪৭০ কিমি দৈর্ঘ্যে খননের প্রস্তাবনা পটুয়াখালীতে বিড়াল উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস নলছিটিতে জেলা পরিষদ সদস্যের বিরুদ্ধে বাঁধ নির্মাণের অভিযোগ আফসার’র খুনীদের গ্রেফতার করে নির্বাচনে সুষ্ঠ পরিবেশ ফিরিয়ে আনুন, জানাযা নামাজে -পৌর মেয়র কামাল চরফ্যাসনে স্ত্রীর সাথে অভিমানে স্বামীর বিষপানে মৃত্যু আমি হব পৌরসভার পাহারাদার…….নৌকা প্রতিকের মেয়র প্রার্থী মোঃ হারিছুর রহমান বছরের মাঝামাঝি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু ঝালকাঠি ছাত্রলীগ নেতার পিতা ভুয়া মেজর গ্রেপ্তার বরিশাল মহানগর ও জেলা ছাত্রদলের আয়োজনে আলোচনা সভা ও দোয়া-মোনাজাত বাকেরগঞ্জ সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসির মতবিনিময়
সাগরে মাছ শিকারে গিয়ে ট্রলারসহ ১৮ জেলে নিখোঁজ

সাগরে মাছ শিকারে গিয়ে ট্রলারসহ ১৮ জেলে নিখোঁজ

গভীর বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকারে গিয়ে ট্রলারসহ ১৮ জেলে নিখোঁজ হয়েছেন।

নিখোঁজদের সন্ধান না পাওয়ায় সোমবার রাতে বরগুনা সদর থানায় ট্রলার মালিক মো. নুরুল ইসলাম একটি জিডি করেছেন, যার জিডি নং ১০০৩।

নিখোঁজ জেলেদের মধ্যে ১১ জনের বাড়ি বরগুনা জেলার গুলিশাখালী ও বাকি সাতজন ভোলার নুরাবাদ এলাকার বাসিন্দা। তাদের মধ্যে বরগুনার গুলিশাখালী এলাকার মো. রিপন, মো. বাবুল, আলমগীর হোসেন, মোশারেফ হোসেন এবং ভোলা জেলার নুরাবাদ এলাকার মো. ফারুক মাঝির নাম পাওয়া গেছে।

এফবি হযরত কায়েদ (র.) ট্রলারের মালিক মো. নুরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নুরুল ইসলাম জানান, গত ৬ ডিসেম্বর বরগুনার গুলিশাখালী ঘাট থেকে ১৮ জেলেসহ খাদ্য সামগ্রী নিয়ে মাছ ধরার জন্য সাগরে রওনা হয়। সাধারণত প্রতি ট্রিপ ৮ থেকে ১০ দিনের মধ্যেই কূলে ফিরে আসে। এই  সময়ের মধ্যে না আসায় তাদের স্বজনরা কান্নাকাটি করছেন।

জেলেদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করতে না পারায় বরগুনা সদর থানায় জিডি করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, যে খাদ্য সামগ্রী নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তাতে মাত্র ৮ ১০ দিনের মতো সাগরে থাকতে পারার কথা; তবে এখনও না ফেরায় ধারণা করা হচ্ছে, ইঞ্জিন বিকল হয়ে সাগরে ভাসতে পারে।

বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, ট্রলার মালিক আমাদের বিষয়টি জানিয়েছে। আমরা আইনের সহযোগিতা চেয়েছি এবং সমিতির পক্ষ থেকেও অনুসন্ধান করা হবে।

বরগুনা সদর থানার ওসি কেএম তারিকুল ইসলাম জানান, সোমবার রাত ১১টার দিকে নুরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি থানায় জিডি করেছেন। বিষয়টি উপকূলীয় জেলাগুলোতে জানানো হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com