শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
আগৈলঝাড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালত কর্তৃক ৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে জরিমানা পিলখানায় বিডিআর ঘাতকদের ফাঁসি চাই : মোমিন মেহেদী তজুমদ্দিনে চরে গভীর রাতে সশস্ত্র মহড়া, উড়ছে লাল নিশান! আতংকিত কৃষক!! চরফ্যাসনে দেবরের শিশুপুত্রকে হত্যা চেষ্টা, অভিযোগ দায়ের ঝালকাঠিতে শাহাদাৎ হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড পিতার ক্রয়কৃত জমি রক্ষা ও প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ এনে পুত্রের সংবাদ সম্মেলন ববি উপাচার্যের সাথে বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও ছাত্র উপদেষ্টাদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত পুলিশের করোনার ভ্যাকসিন রেজিষ্ট্রেশন বুথেই ভরসা বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের টিউমার অপসারন হয়নি॥ প্রতিনিয়ত ঘটছে দূর্ঘটনা নগরীতে ট্রান্সফ্যাটমুক্ত নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতের দাবীতে মানববন্ধন
বরিশালে বাসদের বিনামূল্যের বাজারে নববর্ষের খাবার

বরিশালে বাসদের বিনামূল্যের বাজারে নববর্ষের খাবার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল: করোনা ভাইরাসের প্রভাবে যখন বন্ধ হয়ে গেছে পহেলা বৈশাখের সব অনুষ্ঠান, ঠিক তখনই বরিশাল নগরের কর্মহীন অসহায় দুস্থ মানুষের জন্য বিনামূল্যে ইলিশ, মুড়ি, জিলাপির পাশাপাশি অন্য খাদ্যসামগ্রী দিচ্ছে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ)।

মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) নগরের ফকিরবাড়ি বাসদ কার্যালয় সংলগ্ন মাতৃছায়া স্কুলমাঠের মানবতার বাজারথেকে পহেলা বৈশাখে এমন কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। মানবতার বাজার শুরু হওয়ার পর থেকে চাল, ডাল, পেঁয়াজ, তেল, শাক-সবজি, ওষুধসহ ১৭টি আইটেম নিয়মিত দেওয়া হচ্ছে শতাধিক পরিবারের মধ্যে। বাসদের সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী বলেন, এবারের পহেলা বৈশাখে কারো মনে আনন্দ নেই। তারপরও এ দিনটিতে দুস্থ মানুষদের জন্য ইলিশ, মুড়ি আর জিলাপি এ তিন আইটেম যুক্ত করেছেন নববর্ষের বার্তা পেঁছে দেওয়ার জন্য। তিনি জানান, ফ্রি রেশনিং ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে এ বাজার থেকে পহেলা বৈশাখে ইলিশ, মুড়ি আর জিলাপির সঙ্গে সঙ্গে পাটশাক, রেখা, লাউ, টমেটো, পুঁইশাকও দেওয়া হচ্ছে। ইমরান হাবিব রুমন বলেন, একটা পরিবারে যা কিছু প্রয়োজন তার বেশিরভাগ পণ্যই আমরা মানবতার বাজারে রেখেছি। প্রতিদিনই আমরা আরও নতুন নতুন পণ্য আমাদের এ বাজারে যুক্ত করবো। তিনি বলেন, আর্থিক সামর্থ্য এবং পরিবারের সদস্যসংখ্যা বিচার করে আমরা প্রত্যেক পরিবারকে একটি রেশন বই দেবো। তার মাধ্যমে তারা এখান থেকে বাজার সংগ্রহ করবে। যেখানে আমরা ৪০০/৫০০ পয়েন্ট দেই, যা দিয়ে ওই পরিবার বিনামূল্যে প্রায় ৬/৭শটাকার বাজার করতে পারে। আমরা চেষ্টা করবো প্রতি সপ্তাহেই প্রতি বইয়ে নতুনভাবে পয়েন্ট যুক্ত করার। আমরা এ সংকটের সময় প্রতিদিনই অন্তত ২০০ পরিবারকে এ সহযোগিতা দেওয়ার চেষ্টা করবো।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com