বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
ঝালকাঠিতে ৯০ বছরের বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুয়াকাটার হোটেল থেকে ট্রলার মালিকের লাশ উদ্ধার কাউকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করা যাবে না : ডিসি খাইরুল আলম অনলাইন দক্ষতায় সবচেয়ে এগিয়ে বরিশাল, পিছিয়ে সিলেট বরিশালে পুলিশ সদস্যসহ আরও ১১ জনের করোনা শনাক্ত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করনের দাবিতে বিক্ষোভ স্মারকলিপি প্রদান ভান্ডারিয়ায় নবগঠিত কমিটির পক্ষ থেকে ফুলের শুভেচ্ছা ঝালকাঠির কিশোর গ্যাং’কে সামলাবে কে? চাঁদার টাকা না দেয়ায় ব্যাবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চরফ্যাসনে তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা, মামলা আগৈলঝাড়ায় সাজাপ্রাপ্ত মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার
বরিশাল নগরীর সকল লকডাউন বাসায় খাবার, চিকিৎসাসেবা, ঔষধসহ সকল দায়িত্ব গ্রহণ করলো বাসদ

বরিশাল নগরীর সকল লকডাউন বাসায় খাবার, চিকিৎসাসেবা, ঔষধসহ সকল দায়িত্ব গ্রহণ করলো বাসদ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ৬ জুন শনিবার থেকে বরিশাল নগরীর সকল করোনা আক্রান্ত রোগী এবং তাদের পরিবারের খাবার, চিকিৎসা, ঔষধ, কাউন্সিলিং, পরিবহনসহ সকল দায়িত্ব গ্রহণ করলো বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ। শনিবার (৬ জুন) বেলা ১২টায় ফকিরবাড়ি রোডস্থ বাসদ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই দায়িত্ব গ্রহণের কথা জানিয়েছেন বাসদের জেলা আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন এবং সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের বদরুদ্দোজা সৈকত, শহীদুল ইসলাম, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্ররন্টর
প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন বলেন, ‘প্রতিদিনই করোনা আক্রান্ত রোগীদের বাসা প্রশাসন কর্তৃক লকডাউন করে দেয়া হয়। কিন্তু রোগীসহ এই বাসার সদস্যদের খাবার, রোগীর চিকিৎসা, প্রয়োজনীয় ঔষধ সরবরাহ, রোগী এবং পরিবারের সদস্যদের কাউন্সিলিং, প্রয়োজনে রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে চিকিৎসা দেয়া কোনটির দায়িত্বই প্রশাসন পালন করছে না। প্রশাসনের সাথে এই বিষয়ে যোগাযোগ করলে তারাও অপারগতা প্রকাশ করেছেন। যদিও আমরা দেখেছি, পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে বরিশালেও অনেক পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে এমনকি মৃত্যুবরণও করেছে। আমরা এই বিষয়ে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে জানতে পেরেছি যে, লকডাউন পরিবারের প্রয়োজনীয় সেবাদানের বিষয়টি নিয়ে কোন সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থাপনা নীতি সরকার কর্তৃক প্রণয়ন করা হয়নি। এত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় নিয়ে বরিশালে জেলা প্রশাসন, সিটি কর্পোরেশন, সিভিল সার্জন বা পুলিশ প্রশাসন কারা কি দায়িত্ব পালন করবে সেটির কোন সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নেই। অথচ ৩০ মে যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু হবার পর থেকে প্রতিদিনই করোনা আক্রান্ত সংখ্যা মারাত্মকভাবে বাড়ছে এবং বাড়ছে লকডাউনকৃত পরিবারের সংখ্যা। আজ যদি সিটি কর্পোরেশন, জেলা প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবং বেসরকারিভাবে আমাদের মতো রাজনৈতিক, সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলোকে যুক্ত করে সমন্বিত একটি উদ্যোগ নেয়া যেত তাহলে কোনভাবেই এই সংকটগুলো তৈরি হতো না। শুধুমাত্র সরকারের ভুলনীতির কারণে আজ বরিশালসহ সারাদেশে করোনা আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।’
ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী বলেন, ‘যেহেতু সরকারি উদ্যোগে বরিশালের লকডাউনের বাসাগুলোর খাবার, ঔষধ, চিকিৎসা, কাউন্সিলিং, প্রয়োজনে হাসপাতালে রোগী পরিবহনের দায়িত্ব গ্রহণ করা হয়নি তাই এই অভাবনীয় দুর্দশাগ্রস্ত এই পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়ানোর লক্ষ্যে আজ থেকে আমরা বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের পক্ষ থেকে বরিশাল নগরীর সকল লকডাউন পরিবারের খাবার, ঔষধ, চিকিৎসা, কাউন্সিলিং, প্রয়োজনে হাসপাতালে ভর্তি করানোর সকল দায়িত্ব আমরা স্বেচ্ছায় গ্রহণ করলাম। এই বিশাল কাজটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং চ্যালেঞ্জিং জেনেও বরিশালের দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল হিসেবে আমরা এই দায়িত্ব কোনভাবেই এড়িয়ে যেতে পারি না। বরিশালসহ সারাদেশের মানুষের সমর্থন, সহযোগিতা এবং ভালবাসায় আমরা এই দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করতে পারবো। আমরা প্রশাসনের কাছে আহ্বান জানাবো প্রতিদিনের করোনা আক্রান্ত রোগীদের তথ্য দিয়ে এই কাজকে এগিয়ে নিতে আমাদের পাশে থাকবেন।’
মনীষা চক্রবর্ত্তী আরও বলেন, আমাদের সীমিত আকারে মানবতার বাজার, মানবতার কৃষি, ফ্রি চিকিৎসা, ফ্রি এম্বুলেন্স সার্ভিস, এলাকায় এলাকায় ঘরে ঘরে গিয়ে স্বাস্থ্য স্ক্রিনিং কার্যক্রম চালু রেখেছি। এছাড়াও দুস্থ শিশুদের পড়াশুনা চালু রাখতে ‘মানবতার পাঠশালা’ চালু করতে যাচ্ছি। আমাদের সকল আয়োজন সফল করতে আমারা দেশবাসীর সমর্থন সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।’
বরিশালের যে কোন করোনা আক্রান্ত রোগী বা পরিবার আজ থেকে যে কোন প্রয়োজনীয় ০১৫৭২৩১৪০৮৫, ০১৪০৯১৬০০৪২, ০১৭১১২২৭৫১৯ নাম্বারে ফোন করে আপনাদের প্রয়োজনীয় জিনিস সংগ্রহ করতে পারবেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com