শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:০৬ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
উজিরপুর ও বানারীপাড়ায় এস. সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টুর নেতৃত্বে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও আলোচনা সভা আসন্ন বিসিসি নির্বাচন: তৃণমুলের দাবি সান্টু তৃণমুলের নিরেট কর্মী থেকে কেন্দ্রিয় নেত্রী ও বরিশাল বিএনপির অভিভাবক রাজনৈতিক অনবদ্যতায় শিরিন দখিনের খবরের প্রধান সম্পাদক ডা: সমীর কুমার চাকলাদারের সফল অস্ত্রোপচার বানারীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষ রোপন বানারীপাড়ায় প্লানবিহীন ভবন অপসারনের দাবীতে ব্যাবসায়ীদের মানববন্ধন বানারীপাড়ার সাংবাদিক এস মিজানুল ইসলাম “কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক-২০২১” পেয়েছেন মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী বানারীপাড়ার প্রবাসী হাবিবুর রহমান চালু হওয়ার অপেক্ষায় পটুয়াখালীর দুই মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র হিজলায় ৬শত ৪৭ শিশু শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত

করোনার ক্ষমতা কমছে!

দেশে করোনা ভাইরাসে শনাক্ত রোগীর হার ২০ থেকে ২৩ শতাংশে উঠানামা করছে। এই অবস্থাকে স্থিতিশীল হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। অন্যদিকে দেশে করোনা ভাইরাসের রিপ্রোডাকশন রেট (আর-নট) কমে শূন্য দশমিক ৯৯ শতাংশ নেমে এসেছে। আর-নট হার হ্রাস পাওয়াকে পজিটিভ হিসেবে দেখছেন বিশেষজ্ঞরা।

জানা গেছে, আর-নট রেট দিয়ে একজন করোনা সংক্রামিত রোগী কতজন মানুষকে সংক্রমিত করার ক্ষমতা রাখে তা নির্ধারণ করে থাকেন বিজ্ঞানীরা। রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) রবিবারের হিসাবে আর-নট রেট একের নিচে শূন্য দশমিক ৯৯ শতাংশ নেমে এসেছে। এটি এপ্রিলে ছিল ২ শতাংশ।

আইইডিসিআরের তথ্যমতে, দেশে করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু হয় চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি থেকে। পরীক্ষা শুরুর ১৮ দিনের মাথায় গত ৮ মার্চ প্রথম তিনজন করোনা শনাক্তের কথা জানায় আইইডিসিআর। ওইদিন থেকে গতকাল সোমবার দুপুর পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে এক লাখ ৬৫ হাজার ৬১৮ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ২ হাজার ৯৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৭৬ হাজার ১৪৯ জন। ২৪ ঘণ্টার পরীক্ষায় শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৪৭ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪৫ দশমিক ৯৮ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৭ শতাংশ।

আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এএসএম আলমগীর হোসেন বলেন, গত তিন সপ্তাহ ধরে দেশে প্রতিদিন যে পরিমাণ সন্দেহভাজন মানুষের করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে তাদের মধ্যে ২০-২৩ শতাংশ শনাক্ত হচ্ছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে সংক্রমণ অনেকটা স্থিতিশীল রয়েছে। তবে আগের তুলনায় ঢাকায় সংক্রমণ কিছুটা কমেছে। ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামসহ কিছু কিছু জেলায় সংক্রমণ অবশ্য কিছুটা বেড়েছে।

ড. এএসএম আলমগীর হোসেন বলেন, বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের রিপ্রোডাকশন রেট গত দুই সপ্তাহে ধরে কমছে। রবিবার আমরা আর-নট হিসাব করে দেখেছি একের নিচে, শূন্য দশমিক ৯৯ শতাংশ। গত সপ্তাহে আর-নট রেট ছিল ১ দশমিক শূন্য ৪। ঈদের পর এটি বেড়ে ১ দশমিক ৯৯ হয়েছিল।

এপ্রিলে করোনার আর-নট রেট ছিল ২ শতাংশ। এই রেট একের নিচে থাকা একটা পজিটিভ সাইন। কারণ আর-নট রেট হ্রাস পাওয়ায় একজন আক্রান্ত ব্যক্তি যেহেতু একজনের কম মানুষকে সংক্রমিত করবে। এটি আমাদের জন্য ভালো দিক। ফলে আস্তে আস্তে সংক্রমণ কমতে শুরু করবে। আশা করছি জুলাইয়ের শেষ নাগাদ দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব কমতে শুরু করবে। তবে একে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে কোরবানির ঈদ। ঈদ উপলক্ষে মানুষ হাটবাজারে যাবে আবার বাড়ি যাবে ঢাকায় আসবে এতে সংক্রমণ বাড়ার ঝুঁকি তৈরি হবে। স্বাস্থ্যবিধিগুলো মানা হলে ও নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা কার্যকর রাখলে জুলাইয়ের শেষ নাগাদ সংক্রমণ কমতে শুরু করবে।

এদিকে, দেশের করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় গৃহীত স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম পর্যালোচনা ও সমন্বয়ের লক্ষ্য সরকার গত ২৮ মার্চ দেশের আটজন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সমন্বয়ে যে কমিটি গঠন করেছে সেই কমিটি এপিডেমিওলজিক্যাল ফর্মুলার ভিত্তিতে সামনের দিনগুলোয় করোনা পরিস্থিতি কী হতে পারে তার প্রক্ষেপণ তৈরি করে ২৩ জুন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দাখিল করেছেন। সেই প্রক্ষেপণ অনুযায়ী করোনার সংক্রমণ পিকের কাছাকাছি আছে। দেশের করোনা পরিস্থিতি স্থিতিশীল অবস্থায় আছে। চলতি মাসের তৃতীয়-চতুর্থ সপ্তাহ থেকে করোনার সংক্রমণ কমতে শুরু করতে পারে। তবে এটি নির্ভর করবে যেসব স্বাস্থ্যবিধির মানার কথা বলা হচ্ছে মানুষ সেটা কতটা পালন করছে তার ওপর। আবার আসন্ন ঈদে জনসমাগম নিয়ন্ত্রণ করা না হলে সংক্রমণ উল্টো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ৩২০১ জন, মৃত্যু ৪৪ জনের

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও ৪৪ জন মারা গেছেন। দেশে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল দুই হাজার ৯৬ জনে। ২৪ ঘণ্টায় তিন হাজার ২০১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো এক লাখ ৬৫ হাজার ৬১৮ জনে। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন তিন হাজার ৫২৪ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৭৬ হাজার ১৪৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষায় শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৪৭ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪৫ দশমিক ৯৮ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৭ শতাংশ।

গতকাল সোমবার দুপুর আড়াইটায় দেশের কোভিড-১৯ সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে এসব তথ্য জানান অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ডা. নাসিমা জানান, বর্তমানে ৭৩টি ল্যাবরেটরিতে করোনার পরীক্ষা হচ্ছে। ২৪ ঘণ্টায় ৬৮টি ল্যাবের রিপোর্ট পাওয়া গেছে। এসব ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৫ হাজার ২০১টি এবং পরীক্ষা করা হয়েছে ১৪ হাজার ২৪৫টি। এখন পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৮ লাখ ৬০ হাজার ৩৬০টি। এসব পরীক্ষায় রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৬১৮ জন। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৪৪ জন। এর মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ এবং ১১ জন নারী।

অঞ্চল বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ঢাকা বিভাগে ১৭, চট্টগ্রামে ১১, বরিশালে ৪, রাজশাহীতে ৩, খুলনায় ২, সিলেটে ৩, রংপুরে ২ এবং ময়মনসিংহে ২ জন রয়েছেন। মৃতদের মধ্যে পুরুষ এক হাজার ৬৫৭; যা শতকরা ৭৯ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ এবং নারী ৪৩৯ জন; যা শতকরা ২০ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ৬৭৭ জনকে, এখন পর্যন্ত আইসোলেশন করা হয়েছে ৩১ হাজার ৫৪৯ জনকে। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৫৯৮ জন, ছাড়া পেয়েছেন ১৪ হাজার ৭৫৫ জন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com