শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
উজিরপুর ও বানারীপাড়ায় এস. সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টুর নেতৃত্বে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও আলোচনা সভা আসন্ন বিসিসি নির্বাচন: তৃণমুলের দাবি সান্টু তৃণমুলের নিরেট কর্মী থেকে কেন্দ্রিয় নেত্রী ও বরিশাল বিএনপির অভিভাবক রাজনৈতিক অনবদ্যতায় শিরিন দখিনের খবরের প্রধান সম্পাদক ডা: সমীর কুমার চাকলাদারের সফল অস্ত্রোপচার বানারীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষ রোপন বানারীপাড়ায় প্লানবিহীন ভবন অপসারনের দাবীতে ব্যাবসায়ীদের মানববন্ধন বানারীপাড়ার সাংবাদিক এস মিজানুল ইসলাম “কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক-২০২১” পেয়েছেন মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী বানারীপাড়ার প্রবাসী হাবিবুর রহমান চালু হওয়ার অপেক্ষায় পটুয়াখালীর দুই মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র হিজলায় ৬শত ৪৭ শিশু শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত
ডবল সেঞ্চুরির পথে হাঁটছে কাঁচামরিচ

ডবল সেঞ্চুরির পথে হাঁটছে কাঁচামরিচ

বাজারে উত্তাপ ছড়াচ্ছে সবজির দাম। দাম যেন কমছেই না। উল্টো বেশকিছু সবজির দাম বেড়েছে। দু-একটি বাদে বেশিরভাগ সবজির কেজি এখন ৫০ টাকার ওপরে। ১০০ টাকার কাছাকাছি রয়েছে বেগুন ও বরবটি। শতকের ঘর ছাড়িয়েছে টমেটো ও গাজর। ওদিকে কাঁচামরিচের ঝালও কম নয়। কেজি তার ২০০ টাকা ছুঁই ছুঁই।

এদিকে সবজির দরের ঊর্ধ্বগতি ঘাম ছোটাচ্ছে ক্রেতাদের কপালে। মহামারীর মন্দা সময়ে মাছ-মাংস কেনা যেখানে দায়, সেখানে স্বল্পআয়ের মানুষের কাছে সবজিই ছিল একমাত্র ভরসা। লম্বা সময় ধরে বেশিরভাগ সবজির দামও রয়েছে নাগালের বাইরে। এতে বাজারে এসে অনেকেই পড়ছেন অস্বস্তিতে।

রাজধানীর রায়েরবাগ বাজারে মো. হানিফ রহমান নামের একজন ক্রেতা বলেন, করোনায় বেতন-ভাতা অর্ধেক হয়ে গেছে। মাছ-মাংস কজন আর কিনতে পারে। ভরসা ছিল সবজি। সেটার দামেও আগুন। এক কেজি সবজির দাম এখন ভালো মানের যে কোনো চালের দামের চেয়েও বেশি। মহামারীর সময়ে মানুষ যেখানে চাল কিনেই খেতে পারছে না, সেখানে এত দামে সবজি কিনবে কিভাবে?

গতকাল রায়েরবাগ, শনিরআখড়া, যাত্রাবাড়ী, খিলগাঁও, মালিবাগ, রামপুরাসহ রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বেগুনের কেজি ৬০ থেকে ৮০ টাকা ও বরবটির কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা। করলা ৬০-৭০ টাকা, কচুরমুখী ৬০-৭০ টাকা, চিচিংগা, কাকরোল ও ঝিঙা ৫০-৬০ টাকা, কচুরলতি ৪০-৬০ টাকা, পেঁপে ৪০-৫০ টাকা, পটোল ৩০-৫০ টাকা ও ঢেঁড়স ৩০-৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

মান ও বাজারভেদে পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৫০ টাকায়। গাজর বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১১০ টাকা কেজি। তবে দামের তালিকায় এখন সবার ওপরে রয়েছে কাঁচামরিচ। বাজারভেদে কাঁচামরিচের পোয়া (২৫০ গ্রাম) ৪৫ থেকে ৪৮ টাকা বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ১৯০ টাকা দরে। কোথাও কোথাও এলাকার বউবাজারগুলোতে বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা কেজি। অন্যদিকে তিন দিনের ব্যবধানে আলুর দামও বেড়েছে। ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া আলু এখন ৩২ থেকে ৩৫ টাকা।

দামের বিষয়ে জানতে চাইলে মালিবাগ বাজারের সবজি ব্যবসায়ী মোকাদ্দোস মিয়া বলেন, টমেটো ও গাজরের মৌসুম শেষ। বাজারে এখন যা পাওয়া যাচ্ছে তা মজুদকৃত। সেটাও দিন দিন কমে আসছে। তাই দামও বাড়ছে।

কারওয়ানবাজারের সবজি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স রিয়াজ এন্টারপ্রাইজের ব্যবসায়ী বলরাম চন্দ্র জানান, সবজির ফলন এবার ভালো হলেও বৃষ্টির কারণে ক্ষেতের অনেক ক্ষতি হয়েছে। তাই সরবরাহ কম। এ জন্য বেগুন, কাঁচামরিচ, বরবটিসহ প্রায় সব ধরনের সবজির দাম বাড়তি রয়েছে। কাঁচা পণ্য হওয়ায় দাম এক লাফে বাড়ে-কমে। ক্ষেতের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আরও খানিকটা সময় লাগবে। ততদিন দাম চড়াই থাকবে।

এদিকে সবজির এমন চড়া দামে দিশেহারা নিম্নআয়ের মানুষ। রায়েরবাগ বাজারে বাজার করতে আসা ভ্যানচালক মো. আজিজ হাওলাদার বলেন, এমন দুর্দিনে সবজি কিনে অন্তত তিন বেলার খাওয়া চললেও হইতো, কিন্তু দামের কারণে সেইটাও সম্ভব হইতাছে না। আগে আলুভর্তা ডাল দিয়ে ভাত খাইতাম। এখন আলুর দামও বাড়ছে। এখন কলা কিনছি চারটা। তরকারির লগে কলার খোসা ভর্তা কইরাও এক বেলা বেশি ভাত খাওন যাইবো।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com