বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ১১:১১ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
শেখ হাসিনা এই দুটি হত্যাকান্ডের মধ্যে দিয়ে নিজের পায়ে কুড়াল মেরেছে-গয়েশ্বর ভোলায় পুলিশের বর্বরোচিত হামলায় নুরে আলম ও গুলিতে আব্দুর রহিম মৃধার মৃত্যুতে সরফুদ্দিন সান্টুর শোক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপ-স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবা সম্পাদক হলেন বরিশালের ডাঃ রাহাত আনোয়ার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধার ক্ষোভ: “মালাউনের বাচ্চা” এখানে কেন? বাংলার টাইগার বাকেরগঞ্জ জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ১ জন কে কুপিয়ে জখম সিলেটের বানভাসি মানুষের সাহায্যার্থে; বিএনপি মহাসচিবের হাতে ভোলা জেলা বিএনপি সভাপতির চেক হস্তান্তর বরিশালের উত্তর জনপদে যুবদলের ১২ টা বাজিয়ে ছাড়বে দুলাল, হাইকমান্ড পদক্ষেপ না নিলে প্রতিহতের ঘোষণা বরিশালের আলো’র সম্পাদক মোস্তফা কামাল জুয়েল’র পিতার মৃত্যুতে দখিনের খবর’র শোক দৈনিক বরিশালের আলো পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক মোস্তফা কামাল জুয়েল এর পিতার ইন্তেকাল, বাংলাদেশ সম্পাদক ফোরাম’র বরিশাল’র শোক

নির্মাণে অনিয়ম, পটুয়াখালীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ

নির্মাণে অনিয়ম, পটুয়াখালীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ

পটুয়াখালী প্রতিবেদক ॥ জেলার মহিপুরে নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার একবছর না যেতেই ভাঙতে শুরু করেছে পটুয়াখালীর নিজামপুর, সুধীরপুর, কমরপুরের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। ফলে নতুন করে পানিবন্দি হওয়ার পুরনো শংকা এলাকাবাসীর মধ্যে আবার দেখা দিয়েছে। এজন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের অপরিকল্পিত প্রকল্প প্রণয়নসহ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নি¤œমানের কাজকে দায়ী করেছেন এলাকাবাসী।
জানা যায়, ২০০৭ সালে ঘুর্ণিঝড় সিডরের আঘাতে ভেঙে যায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। এরপর কয়েক দফা পুনর্র্নিমাণ কাজ করা হলেও তা টেকসই হয়নি। এতে বছরের প্রায় ছয় মাস দু’দফা জোয়ারের পানিতে বন্দি হয়ে পড়ে সাগর মোহনার চারটি গ্রামের প্রায় আট হাজার মানুষ। এলাকাবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে পানি উন্নয়ন বোর্ড ৪৭/১ পোল্ডারে ২ কোটি ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে চারটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ৮৮৫ মিটার বাঁধের নির্মাণ কাজ জুন ২০২০ সালে শেষ করা হয়। যেখানে ৫ প্যাকেজে ৪টি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কাজ করে। তবে শুরুতেই কাজের ক্ষেত্রে অনিয়ম চোখে পড়ায় স্থানীয়রা প্রতিবাদ করে এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানায়। তখন পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্তৃপক্ষ বলেছিলে, বাঁধ নির্মাণে জিও ব্যগের ভিতরে থাকা বালু ও সিমেন্ট ১ মাসের ভেতরে একত্রিত হয়ে জমাট বেঁধে যাবে। কিন্তু ৩০ জুন কাজ শেষ হলেও এখন পর্যন্ত তা জমাট বাঁধেনি। কারণ ব্যাগের ভেতরে বালুর থেকে সিমেন্টের পরিমাণ কমিয়ে দিয়েছেন ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। মানহীন কাজের কারণে বছর না যেতেই বিলীন হতে যাচ্ছে সরকারের কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত নিজামপুর ও সুধীরপুর বেড়িবাঁধের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।
বিজ্ঞাপন স্থানীয় হানিফ চৌকিদার জানান, কাজের সময় আমরা অনিয়মের প্রতিবাদ জানাই, কিন্তু কর্তৃপক্ষ তাতে কর্ণপাত করেনি। কাজ শেষ হইছে ৩ মাস হয়ে গেছে কিন্তু এখন পর্যন্ত ব্যাগের ভেতরে বালু জমাট বাঁধেনি। যার খেসারত আমাদের গ্রামবাসীদের দিতে হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী মুসফিকুর রহমান বলেন, ‘আমাদের জানা মতে বাঁধের কাজের ক্ষেত্রে কোনো অনিয়ম হয়নি। তবে আম্ফান ও বন্যার কারণে কাজ কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যা আমরা পুনরায় নির্মাণ করে দিয়েছি।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com