রবিবার, ১৩ Jun ২০২১, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
করোনার চেয়ে নির্বাচন বেশি গুরুত্বপূর্ণ: সিইসি প্রধানমন্ত্রী ঘরের চাবি হস্তান্তর করবেন ২০ জুন নগরীর বিভিন্ন সড়কের বেহাল দশা! কলাপাড়ায় উপকূলীয় দুর্যোগ ঝুঁকি হ্রাস বিষয়ক কর্মসূচী কুয়াকাটায় নিষেধাজ্ঞার মধ্যে মাছ ধরায় নৌ-পুলিশের হাতে ৪ ট্রলারসহ গ্রেফতার-১৬ জেলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন: রাজাপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা সুদখোরদের গালিগালাজ, উৎপাত ও প্ররোচনায় গৌরনদীতে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা আগৈলঝাড়ায় নিজের টাকায় গৈলা বাজারের খাজনা পরিশোধ করলেন আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি আগৈলঝাড়ায় সাবেক পুলিশ সদস্যর বাড়ির গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে নলছিটি বাসষ্ট্যান্ড-থানার পুল সড়কের সংস্কার কাজ
পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে দুটি ট্রেনের সংঘর্ষে ৪০ জন নিহত, বহু যাত্রী আটকা

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে দুটি ট্রেনের সংঘর্ষে ৪০ জন নিহত, বহু যাত্রী আটকা

বিদেশ ডেস্ক ॥ পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে এক রেল দুর্ঘটনায় অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছে এবং আহত হয়েছে কয়েক ডজন মানুষ। আরও বহু যাত্রী ধ্বংসাবশেষের মধ্যে আটকা পড়ে আছে বলে কর্মকর্তারা বলছেন। সিন্ধু প্রদেশের একটি ট্রেন লাইনচত্যু হয়ে অন্য একটি ট্র্যাকে চলে আসে। যাত্রীবাহী ট্রেন দুটির একটি করাচী থেকে সারগোদা যাচ্ছিল। সেই রেলের সাথে তখন যাত্রী বোঝাই আরেকটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। উদ্ধারকর্মীরা আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে বেশ কয়েকজনের অবস্থা সংকটজনক বলে বলা হচ্ছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের হিসেব অনুযায়ী, পাকিস্তানে ২০১৩ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে বেশ কিছু রেল দুর্ঘটনায় অন্তত ১৫০ মানুষ নিহত হয়েছে। ঘোটকি জেলার একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ওসমান আবদুল্লাহ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ট্রেনের বিধ্বস্ত কামরাগুলোর মধ্যে কতজন যাত্রী এখনও আটকা পড়ে আছেন তাদের সংখ্যা এখনও জানা যাচ্ছে না। “মোট ছয়টি কামরা পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়েছে। এটা ছিল একটি স্লিপার ট্রেন। ধারণা করা হচ্ছে ৪৭-৫০ জন যাত্রী এই ট্রেনের আটকে রয়েছে। অন্য ট্রেনটিতে ৫০-৬০ জন রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। দুর্ঘটনাস্থল থেকে পাওয়া ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, বেশ কয়েকটি কামরা কাত হয়ে পড়ে আছে। এই দুর্ঘটনা কী কারণে ঘটেছে তা এখনও পরিষ্কার না। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, এই ঘটনায় তিনি হতবাক। কীভাবে এই দুর্ঘটনা ঘটলো সে সম্পর্কে তিনি পূর্ণাঙ্গ তদন্তের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে রেল পাকিস্তানে খুবই জনপ্রিয়। কিন্তু এগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ তেমন একটা হয়না। সেই সাথে রেল লাইন, সিগনালিং ব্যবস্থা এবং ইঞ্জিনগুলোও বেশ পুরনো। এছাড়া, অরক্ষিত লেভেল ক্রসিংয়েও প্রায় যাত্রী-বোঝাই ট্রেনে দুর্ঘটনা ঘটে। এসব কারণে গত ২১শে জুলাই পাঞ্জাব প্রদেশের শেখুপুরায় করাচী থেকে লাহোর-গামী এক ট্রেন শিখ তীর্থযাত্রী বহনকারী একটি ভ্যানকে ধাক্কা দিলে ২১ ব্যক্তি প্রাণ হারান। দু’হাজার উনিশ সালের অক্টোবরে করাচী থেকে রাওয়ালপিন্ডি-গামী ট্রেনের একটি গ্যাস সিলিন্ডার ফেটে আগুন ধরে গেলে ৭০ জন যাত্রী মারা যান। পাকিস্তানের রেল বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে সে দেশে মোট ৭৫৭টি রেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। অর্থাৎ, গড়ে প্রতিবছর ১২৫টি দুর্ঘটনা হয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com