শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক পদে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের দাবি আলহাজ্ব নুরুল আমীন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীম এমপি’র শোক  দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতি ও দলীয় নেতাকর্মীদের হত্যার প্রতিবাদে ভান্ডারিয়া উপজেলা ও পৌর বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচন: চেয়ারম্যান পদে তৃণমুলের দাবি ভিপি আনোয়ার মেধা-সততা ও মানবিকতার সমন্বয়ে কাজ করতে হবে-পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম জাপা চেয়ারম্যান কাজী জাফর আহমদ-এর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে স্মরণসভা বিএনপি নেতা হিফজুল বারীর মৃত্যুতে  বিএনপি মিডিয়া সেল প্রধান জহির উদ্দিন স্বপনের শোক বেগম খালেদা জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে তাঁর রোগ মুক্তি ও চলমান আন্দলনে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে ভান্ডারিয়া উপজেলা এবং পৌর বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে দোয়া ও মিলাদ অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল(অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীম এমপি’র পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন দুই দিনের সফরে বরিশাল আসছেন প্রতিমন্ত্রী কর্নেল(অবঃ)জাহিদ ফারুক শামীম এমপি

বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক পদে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের দাবি আলহাজ্ব নুরুল আমীন

বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির আহবায়ক পদে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের দাবি আলহাজ্ব নুরুল আমীন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥
ত্যাগী ও আন্দোলন সংগ্রামে মাঠে থাকা নেতাদের দিয়ে বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির নতুন কমিটি দেখতে চায় মাঠ পর্যায়ের নেতা কর্মীরা। দলের দুর্দিনে মাঠে থেকে কর্মীদের পাশে থাকা, সরকার দলীয় লোকজনের হামলা মামলার শিকার বিএনপি কর্মীদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া নেতাই বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বে আসুক এমনটাই প্রত্যাশা বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপি’র তৃণমূল নেতা-কর্মীদের। আর এই কর্মীবান্ধব মানুষটি দলের দুর্দিনে বিএনপি সমর্থকদের পাশে থাকতে গিয়ে বারবার হামলা মামলা এবং কারাবরণের শিকার হতে হয়েছে। সামনে সদর উপজেলা বিএনপির কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে ওই মানুষটির নামই বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির সমার্থকদের মাঝে বারবার উচ্চারিত হচ্ছে। সেই মানুষটি হলো বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপি’র সাবেক সহ-সভাপতি, রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি, বরিশাল দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য আলহাজ্ব নুরুল আমিন। আলহাজ্ব নুরুল আমিন ২০০১ সালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে তৎকালীন বরিশাল জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক মেয়র ও সাংসদ আলহাজ্ব এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ারের আহবানে সাড়া দিয়ে বিএনপির একজন প্রথম সারির কর্মী হিসাবে বিএনপিতে সক্রিয় হন । সেই থেকেই আন্দোলন সংগ্রামে সামনের কাতারে থেকে দলের জন্য সক্রিয় ভাবে কাজ করে আসছে। সদর উপজেলার ১০ ইউনিয়নে দলের পক্ষ থেকে মসজিদ, মাদরাসা স্কুল কলেজ সহ বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে । বিএনপি নেতাকর্মী কিংবা তাদের স্বজনদের মৃত্যুতে জানাজার নামাজে অংশগ্রহণ করা এবং অসচ্ছল পরিবারকে আর্থিক সহযোগীতা প্রদান করা যেন আলহাজ্ব নুরুল আমিনের নিত্যদিনের কাজ। আলহাজ্ব নুরুল আমিনের সদর উপজেলার ১০ ইউনিয়নেই সরব উপস্থিতি থাকায় বিএনপির মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাঝে তিনি ইতিমধ্যে আস্থাভাজন হয়ে উঠেছে । আলহাজ্ব নুরুল আমিন ২০১৩ সালে বরিশাল সদর উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি, ২০১৪ সালে রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়ন বিএনপির আহবায়ক, ২০১৭ সালে এি-বার্ষিক সম্মেলনের মাধ্যমে রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০২১ সালে তিনি পুনরায় রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হন। ২০০৩ সালে রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়ন বিএনপি তথা চারদলীয় জোট থেকে বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন আলহাজ্ব নুরুল আমিন। তিনি ২০০৩ সালে বিসিসি নির্বাচনে নগরীর ২৭নং ওয়ার্ডে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব এ্যাড. মজিবর রহমান সরোয়ারে পক্ষে কনভেনারের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১১ সালে দ্বিতীয় বারের মতোন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি। স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় কর্তৃক ৩বার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এতে তিনি সরকারী খরচে মালায়েশিয়া,সিঙ্গাপুর, ফিলিপাইন ও চায়নার স্হানীয় সরকারের কার্যক্রম পরিদর্শনের সুযোগ পান । বারবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান নুরুল আমিন সরকারবিরোধী আন্দোলন-সংগ্রাম করতে গিয়ে এপর্যন্ত ২২টি মামলার শিকার হয়েছেন। বহুবার পুলিশী হামলার শিকার এবং কারাবরণ করতে হয়েছে তাকে। তার পরিবারকেও অনেক ঘাতপ্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে দিন পার করতে হচ্ছে। ব্যবসায়িক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন অপরিসীম। ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর পুলিশের পিটুনিতে গুরুগত আহত হন। সেই অসহ্য যন্ত্রনায় আজও শারীরিকভাবে অসুস্থ বোধ করছেন এই কর্মীবান্দব নেতা। পুলিশ তার গ্রামের বাড়িতে বহুবার তল্লাশীর নামে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও মূল্যবান মালামাল তসরুপ করে। বিএনপির এই নেতা যেমনিএকজন সফল সমাজ সেবক তেমনি উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত তিনি ১৯৯৩ সালে এম.এ পাশ করেন। একজন সফল ব্যবসায়ী হয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র রাজনীতির সাথে নিজেকে কেন সম্পৃক্ত করলেন প্রতিবেদকের এমোন প্রশ্নের? উত্তরে আলহাজ্ব নুরুল আমিন বলেন, জীবনের শুরু থেকেই বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শ লালন ও ধারণ করে পথ চলতে ছিলাম। হঠাৎ করেই রাজনীতিতে সক্রিয় হই। সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারুণ্যের অহংকার বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্তের প্রতি পূর্ন আস্থা রেখে রাজনীতির পথ চলছি। জীবনের শেষ সময়টুকু পর্যন্ত নীতি আদর্শ নিয়ে চলতে চাই। কর্মীদের মাঝে নিজেকে বিলিয়ে দিতে চাই। তিনি আরো বলেন বিএনপি একটা পরিবার, আমি ওই পরিবারের একজন সামান্য সদস্য। আগামী দিনের আন্দোলন-সংগ্রামে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের যে নির্দেশ আসবে তা স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালন করব ইনশাআল্লাহ।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com