বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০২:৩৯ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বিশ্বে একদিনে সর্বাধিক করোনা রোগী শনাক্ত

বিশ্বে একদিনে সর্বাধিক করোনা রোগী শনাক্ত

করোনা ভাইরাস প্রথম শনাক্ত হওয়ার আট মাস পরও একদিনে সর্বোচ্চসংখ্যক লোক নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে। গতকাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচ জানিয়েছে, পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় দুই লাখ ৯৪ হাজার ২৩৭ জন নতুন করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে- এই প্রথম একদিনে এতো মানুষ প্রাণঘাতী ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। খবর বিবিসি।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত দুই কোটি ১০ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। আর মৃত্যু হয়েছে সাত লাখ ৭১ হাজারের বেশি মানুষের। এ দিকে ভারতে সংক্রমণ হু-হু করে বাড়ছে। গতকাল ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ৬৫ হাজারের বেশি লোক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে, যা একদিনে সর্বোচ্চ। দেশটিতে সম্প্রতি প্রায় প্রতিদিনই পূর্বের দিনের চেয়ে বেশ লোক করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। ভারতে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে মৃত্যুবরণ করেছেন ৯৯৬ জন। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৯ হাজার ৩৬ জন। তবে ভারতে সুস্থতার হার তুলনামূলক বেশি। এ পর্যন্ত ১৮ লাখের বেশি লোক সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন।

সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, এক লাখ ৭০ হাজার। আর আক্রান্ত হিসাবে শনাক্ত হয়েছে ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ। দক্ষিণ কোরিয়া ৫ মাসের মধ্যে নতুন রোগী শনাক্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়েছে শনিবার। এদিন দেশটিতে নতুন ১৬৬ জন ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। গত ১১ মার্চের পর এটিই দক্ষিণ কোরিয়ায় সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা। ব্রাজিলে ৩৩ লাখ ১৭ হাজারের বেশি, ভারতে ২৫ লাখ ৮৯ হাজারের বেশি মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ার তথ্য দেওয়া হয়েছে সরকারিভাবে। এ ভাইরাস সবচেয়ে দ্রুতগতিতে ছড়িয়েছে লাতিন আমেরিকার দেশগুলোতে। বিশ্বে এ পর্যন্ত

যত কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে, তার ২৮ শতাংশই এসব দেশের। আর বিশ্বের মোট মৃত্যুর ৩০ শতাংশও ঘটেছে লাতিন আমেরিকার দেশগুলোতে।

উল্লেখ্য, গত বছর ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহানে প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর দুই মাসের মাথায় দুই শতাধিক দেশে ভাইরাসটি থাবা বসায়। চীন সরকার তিন মাসের মধ্যে পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেও বিশ্বের অনেক দেশই এখনো ভাইরাসে কাবু হয়ে রয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com