রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সহযোগিতা চান ববি ভিসি, পদত্যাগ দাবিতে অনড় শিক্ষার্থীরা

সহযোগিতা চান ববি ভিসি, পদত্যাগ দাবিতে অনড় শিক্ষার্থীরা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভিসির পদত্যাগ দাবিতে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলমান। ৮ম দিনে এসে ভিসি বরিশালবাসীর প্রতি উদাত্ত আহ্বান রেখে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরিস্থিতি নিরসনে সার্বিক সহযোগিতা কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে উপাচার্য ড. ইমামুল হক নতুন বিবৃতি দিয়েছেন।
যেখানে তিনি বলেছেন, গত ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে ‘বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি’ আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আমার বক্তব্যের মধ্যে অনুক্ত একটি শব্দ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। এটির সুযোগ নিয়ে একটি স্বার্থান্বেসী মহল বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করে তোলার প্রয়াস নেয়। এরই ধারাবাহিকতার শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ বিশ্ববিদ্যালয় সার্বিক নিরাপত্তাহীনতার সম্মুখীন হয়।
‘উদ্ভুত পরিস্থিতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বিশেষ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ করতে বাধ্য হই। এই সিদ্ধান্তটি নিতে আমার অনেক মানসিক কষ্ট করতে হয়, কারণ আমি নিজেও একজন শিক্ষক, শিক্ষাকার্যক্রম চালু রাখাই আমার কাজ। একই কারণে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছিল।’ তিনি বলেন, পরবর্তীতে গত ২৯ মার্চ প্রেস রিলিজের মাধ্যমে আমার বক্তব্যের কারণে কেউ আহত হয়ে থাকলে তার জন্য আমি দুঃখপ্রকাশও করি। যা বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বল্পসংখ্যক শিক্ষার্থী এখন পর্যন্ত তাদের কর্মসূচি অব্যাহত রাখার নামে একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনে তালা মেরে রেখে শিক্ষাকার্যক্রম বাধাগ্রস্ত করছে। এ অবস্থায় একাডেমিক কার্যক্রম চালু করাও সম্ভব হবে না। আমি আমার শিক্ষার্থীদের নিশ্চিত করতে চাই, অতিদ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম চালু হবে। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় দক্ষিণবাংলার গর্ব। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সার্বিক সহযোগিতা কাম্য।
এদিকে ধারাবাহিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি ও বিক্ষোভ পালন করেছে শিক্ষার্থীরা। এসময় তারা ভিসির পদত্যাগের দাবিতে বিভিন্ন সেøাগান দেয়। তবে দুপুরের দিকে গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির (বিইউডিএস) একটি অনুষ্ঠানে ভিসির কণ্ঠে রাজাকারের বাচ্চা বলে শিক্ষার্থীদের সম্বোধন করার একটি অডিও ক্লিপ প্রকাশ হয়েছে। যে অডিও ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, ভিসি মিথ্যাচার চালিয়ে নিজের ইমেজ ঠিক রাখার চেষ্টা করছেন। ভিসির পদত্যাগের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন এবং গতকালের দেওয়া ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম শেষে কঠোর আন্দোলনে যাবেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com