বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বরিশাল নগরীর মমতা ক্লিনিকের লিফ‌টের নি‌চ থে‌কে চিকিৎসকের মর‌দেহ উদ্ধার

বরিশাল নগরীর মমতা ক্লিনিকের লিফ‌টের নি‌চ থে‌কে চিকিৎসকের মর‌দেহ উদ্ধার

দখিনের খবর ডেস্ক।। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. এম এ আজাদ সজলের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ বেলা ১১টায় নগরীর কালিবাড়ি রোডের মমতা স্পেশালাইজড হাসপাতালের লিফটের নিচ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ

ঘটনায় লাশ উদ্ধারের পরপরই বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতয়ালী থানার একটি টিম ও পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর একটি টিম হত্যার রহস্য উদঘাটনে মাঠে নেমেছে।
বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি কোতোয়ালী) মো. রাসেল জানান, খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করেন এবং শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন।

তিনি আরো বলেন, মৃতের দেহে কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে, তিনি হয়তো উপর থেকে পড়ে গিয়ে নতুবা তাকে কেউ ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছে। তাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য লিফটম্যান, ওই হাসপাতালের শিফট ইনচার্জ ও কর্তব্যরতের মধ্যে ৮ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় এনেছেন।
লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেন জানান, ডা. আজাদের গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের স্বরুপকাঠিতে। আর তার পরিবার ঢাকায় থাকেন। শেবাচিম হাসপাতালে চাকরির সুবাদে তিনি বরিশালেই থাকতেন। প্রাইভেট প্রাকটিসের পাশাপাশি মমতা স্পেশালাইজড হাসপাতালের সাততলার একটি কক্ষে (ডরমিটরিতে) থাকতেন তিনি।
তিনি জানান, সোমবার (২৭ এপ্রিল) দিনগত রাত থেকে ডা. আজাদের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিলো না। অনেক খোঁজাখুঁজির পর সকালে মমতা স্পেশালাইজড হাসপাতালের লিফটের নিচে তার মরদেহ পরে থাকতে দেখা যায়।
এদিকে মৃত চিকিৎসক আজাদের স্বজন ও সহকর্মীরা জানিয়েছেন, শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসক আজাদের স্ত্রী ও দুই সন্তান ঢাকায় বসবাস করেন। এ কারণে প্রায় বছরখানেক যাবত তিনি নগরের কালিবাড়ি রোডের মমতা হাসপাতালের সাত তলার একটি কক্ষে বসবাস করতেন। মঙ্গলবার রাতে সেহেরির সময় তার স্ত্রী ঢাকা থেকে ফোনে যোগাযোগ করে না পাওয়ায় মমতা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার রুমে তালা দেওয়া দেখে পুলিশে খবর দেয়। সকালে পুলিশের উপস্থিতিতে ওই কক্ষের তালা ভেঙে হয়। এরপর খোঁজাখুঁজি করে হাসপাতালের লিফটের নিচে তার মরদেহ দেখতে পান মমতা হাসপাতালের এক কর্মী। পরে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে।
তবে এ মৃত্যুকে প্রাথমিকভাবে সন্দেহজনক বলে মনে করছেন স্বজনরা, তারা ঘটনার তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন।

যদিও এ মৃত্যু দূর্ঘটনা হতে পারে বলে ধারণা করছেন মমতা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. জহিরুল হক মানিক।

এদিকে ঘটনাস্থলে থাকা কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নুরুল ইসলাম বলেন, চিকিৎসক নিখোঁজ থাকার বিষয়টি সকালে তাদের হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়। এরপর তারা হাসপাতালে এসে অনুসন্ধান চালিয়ে লিফটের নিচ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে তার ব্যবহৃত মোবাইল ও চশমা উদ্ধার করা হয়েছে।

বরিশাল মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মো. মোকতার হোসেন বলেন, এ মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে পুলিশ বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে তদন্ত করছে। পাশাপাশি মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের প্রয়োজন রয়েছে। তাই ময়নাতদন্তের মরদেহ উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হচ্ছে। এছাড়া হত্যা না স্বাভাবিক মৃত্যু এ বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করছে। খতিয়ে দেখা হচ্ছে বিষয়টি।

এদিকে, পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর একটি টিম হত্যা না স্বাভাবিক মৃত্যুর বিষয়ে তদন্ত করতে মাঠে নেমেছে। তারা হত্যার ক্লু উদঘাটনে ঘটনাস্থল থেকে আলামত উদ্ধার করেছে বলে দৈনিক সকালের বার্তাকে জানান পিবিআই’র শীর্ষ এক কর্মকর্তা। এছাড়া বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কাজ করছে পিবিআই।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com