সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৮ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
নলছিটিতে আলহাজ্ব আমির আমু এমপি মহোদয়ের পুজা মণ্ডপে আর্থিক অনুদান প্রদান ভাটিখানা জেডএ এন্টারপ্রাইজের গোডাউনে অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীদের হামলা চরফ্যাসনে করোনাকালিন সাংবাদিকদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর চেক বিতরণ আগৈলঝাড়ায় কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য গ্রেফতার প্রধানমন্ত্রীর অনুদান ঘরে ঘরে পৌঁছেছে-জ্যাকব কলাপাড়ায় সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মুহিবের পূজা মন্ডপ পরিদর্শন বাউফলে পুকের হাত মুখ ধুতে গিয়ে পানিতে ডুবে যুবকের মৃত্যু বাংলাদেশের নতুন আবিষ্কার: একটি গাভী জন্ম দেবে বছরে দুটি বাছুর! কলাপাড়ায় ৩২০ একর জমি অধিগ্রহন নিয়ে এলাকাবাসীর সংবাদ সম্মেলন ৭২ ঘন্টায় বরিশালের ৬ জেলায় ২২ জনের করোনা পজিটিভ
করোনা: দক্ষিণাঞ্চলে শিক্ষার্থীদের এলোমেলো শিক্ষাজীবন

করোনা: দক্ষিণাঞ্চলে শিক্ষার্থীদের এলোমেলো শিক্ষাজীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল বিভাগে মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও বিভিন্ন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের সংখ্যা প্রায় চার লাখ। করোনা প্রাদুর্ভাব রুখতে গত দু’মাস যাবৎ বন্ধ এখানকার বেশিরভাগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ভবিষ্যতে পুনরায় কবে নাগাদ শিক্ষা কার্যক্রম স্বাভাবিক হবে তা এখনো অজানা। যে কারণে শিক্ষাবর্ষ এলোমেলো হয়ে যাবার সাথে সাথে শিক্ষাজীবন দীর্ঘাতি হবার আশংকা করছেন এসব শিক্ষার্থীরা। সেই সাথে দীর্ঘায়িত শিক্ষাজীবন বাড়াতে পারে কয়েক লাখ শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা!
রেদানুর রহমান সজিব বরিশাল শহরতলীর সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থী। এবছর উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষায় বসার কথা তার। গত পহেলা এপ্রিল পরীক্ষা শুরু হবার কথা থাকলেও তা স্থগিত হয়ে গেছে করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে। ফলে গত দু’মাস ধরে তিনি প্রতিটা দিন কাটাচ্ছেন অনিশ্চয়তার মধ্যে। কবে এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ ঘটবে তা যেন সবার অজানা। সজিব জানান, পরীক্ষা পিছিয়ে যাবার কারণে পিছিয়ে যাচ্ছে ফলাফল প্রকাশ ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সময়। এই পিছিয়ে যাওয়া তাকে ভবিষ্যৎ জীবনেও পিছিয়ে দেবে। এসব চিন্তা করে বর্তমান সময়ে খুব খারাপ লাগছে তাঁর। একে তো করোনা, তার উপরে এই পিছিয়ে পড়ার চিন্তা সজিবকে ভোগাচ্ছে হতাশায়। এমন মানসিক অবস্থা বরিশাল বিভাগের লাখো শিক্ষার্থীর। করোনা প্রাদুর্ভাব জনিত কারণে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধে এলোমেলো হয়ে গেছে সবার শিক্ষাজীবন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, এ বছর বরিশাল শিক্ষা বোর্ডে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর মোট সংখ্যা ৬৯ হাজার ৯৩৮ জন। যারা গত দু’মাস ঘরে বসে আছে। অন্যদিকে এবছর বরিশালে মাধ্যমিক (এসএসসি) উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী সংখ্যা ৮৯,৬১৬ জন। স্বাভাবিক সময়ে এপ্রিল – মে মাসের মধ্যে এসএসসি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি শুরু হয়ে যায়। কিন্তু এ বছর তারা কবে নতুন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়ে শিক্ষা জীবন চলমান করতে পারবে তা সবার অজানা।
এছাড়া বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীদের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে কয়েক মাস। যে কারণে তীব্র সেশনজট ও চাকরির বাজারে পিছিয়ে পড়ার আশংকা করছে তারা। এমনিতে স্নাতক বা সম্মান পাশের পর সরকারি চাকরিতে প্রবেশের জন্য খুব অল্প সময় হাতে থাকে তাদের। এর ওপর দীর্ঘদিনের এই বন্ধে চাকরি পাবার যুদ্ধে আরো সময় কমে যাবার চিন্তায় দিশেহারা অনেকে। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী হাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, ‘স্নাতক ফাইনাল পরীক্ষার মাঝখানে করোনার কারণে বন্ধ হয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয়। সামনে বিশ্ববিদ্যালয় কবে খুলবে এবং কবে বাকি পরীক্ষাগুলো দিতে পারবো তা জানি না। এর আগেও বিভিন্ন কারণে সেশনজটের সম্মুখীন হতে হয়েছে আমাদের।
বর্তমানে তাই করোনার চেয়েও বেশি ভয় পাচ্ছি ভালো একটি চাকরিতে প্রবেশে নির্ধারিত বয়স শেষ হয়ে যাবার। তবে চলমান সংকটে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন যেন খুব বেশি দীর্ঘায়িত না হয় সেজন্য অনলাইন ক্লাস কার্যক্রমের দিকে ঝুঁকছে অনেক প্রতিষ্ঠান।
বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রায় ২৭ হাজার শিক্ষার্থী পড়াশোনা করে সরকারি ব্রজমোহন বিশ্ববিদ্যালয় (বিএম) কলেজে। সেখানকার ২২টি বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য এখন পর্যন্ত ১০০টি ক্লাস লেকচারের ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উন্মুক্ত করা হয়েছে। এতে করে শিক্ষার্থীরা ঘরে বসেই তাদের বিভিন্ন শিক্ষকের ক্লাস ও লেকচার পেয়ে যাচ্ছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন সরোয়ার।
অন্যদিকে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে উচ্চ শিক্ষার জন্য বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আছেন প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী। সেখানকার বিভিন্ন বিভাগে গত মে মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হয়েছে পরীক্ষামূলক অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম।
তবে এ কার্যক্রমে পরীক্ষা গ্রহণের কোন বিষয় নেই বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রক্টর ড. সুব্রত কুমার দাশ। তবে এই দুজন শিক্ষকই স্বীকার করেছেন, বিভিন্ন বাস্তবতায় অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমে সকল শিক্ষার্থীদের অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ নেই। যে কারণে এই উপায়ে শিক্ষার্থীদের লাভবান হবার সম্ভাবনা কম। তবে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানগুলো খোলার পর শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করে সাধারণ ছুটি কমিয়ে অতিরিক্ত ক্লাস চালু করার কথা বলেন দুজনেই। এতে করে কিছুটা সুফল পেতে পারে শিক্ষার্থীরা। অন্যদিকে বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মুহাম্মদ ইউনুস মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য সরকারি বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানালেন। তিনি বলেন, ‘মাধ্যমিক (এসএসসি) উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগামী জুলাই মাসে ভর্তি ও আগস্ট থেকে ক্লাস শুরুর সম্ভাবনা আছে। সাথে সাথে করোনা সংকট কেটে যাবার দু সপ্তাহ পরেই শুরু হবে স্থগিত উচ্চ মাধ্যমিকের পরীক্ষা। সুতরাং শিক্ষার্থীদের চিন্তার খুব বেশি কারণ নেই’। তবে তিনি এও জানালেন সকল পরিকল্পনা এবং সম্ভাবনা নির্ভর করছে করোনা পরিস্থিতি উন্নতির ওপর। বর্তমান সংকট যতদিন চলমান থাকবে ততদিন স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা যাবে না। যে কারণে দক্ষিণাঞ্চলের লাখ লাখ শিক্ষার্থীর এলোমেলো শিক্ষাজীবন সহসাই সমাধান হবার সুযোগ কম।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com