শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১০:২২ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
আন্তর্জাতিকভাবে বয়কটের মাধ্যমে ফ্রান্সের ঔদ্ধত্যের সমুচিত জবাব দেয়া হবে: চরমোনাই বরিশাল বিভাগে ৭২ জনের করোনা শনাক্ত, ১ জনের মৃত্যু পটুয়াখালীতে দুই কিশোরীর প্রেম, পালিয়ে যাওয়ার পথে র‌্যাবের হাতে ধরা শতবর্ষের পুরানো বিবির পুকুরকে ঘিরেই প্রসারিত হয় বরিশাল নগরী বরিশাল রেঞ্জ আন্তঃজেলা ক্রিকেট প্রতিযোগীতা উদ্ধোধন বঙ্গবন্ধুর পরিবার নিয়ে কটুক্তি : বহিষ্কার হতে পারে ববি শিক্ষার্থী সেশন জট মুক্ত শিক্ষার দাবিতে পটুয়াখালীতে মানবন্ধন বাকেরগঞ্জে ৮ নারীর ধর্ষক সেই হীরার বিচার দাবিতে ছাত্র-যুবসমাজের বিক্ষোভ বরিশালে খালের উপর অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিলো প্রশাসন বরিশালে নির্মিত হবে মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট
বরিশাল-ঢাকা রুটের লঞ্চগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির বালাইও নেই!

বরিশাল-ঢাকা রুটের লঞ্চগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির বালাইও নেই!

পটুয়াখালী প্রতিবেদক ॥ পটুয়াখালী-ঢাকা রুটের যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে লঞ্চগুলোতে মানা হচ্ছে না সরকারি নির্দেশনা বা স্বাস্থ্যবিধি। এ সব লঞ্চের ডেকের যাত্রীরা সামজিক দূরত্ব বাজায় না মেনে যার যার ইচ্ছে মতো ছিট নিয়ে গাদাগাদি করে লঞ্চে যাতায়াত করছেন। লঞ্চগুলোতে নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থাও। এমনকি লঞ্চগুলোতে যাত্রী চলাচলে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে স্থানীয় প্রশাসনেরও নেই কোন নজরদারি কিংবা তদারকি। এতে করোনাভাইরাস সংক্রমণে চরম ঝুঁকিতে থাকলেও সকলে যেন নিরব-নিশ্চুপ।
গতকাল সোম ও আজ মঙ্গলবার দু’দিন সরেজমিনে পটুয়াখালী লঞ্চ ঘাটে এমভি সুন্দরবন-৮, এমভি এ.আর খান-১, এমভি প্রিন্স আওলাদ-৭ ও এমভি সত্তার খান-১ লঞ্চে স্বাস্থ্যবিধি ভাঙার এমন ভয়াবহ চিত্র ফুটে ওঠে। জানা যায়, একটানা ৬৫ দিন বন্ধ থাকার গত ৩১ মে থেকে সারাদেশে লঞ্চ চলাচল শুরু হয়। এ ক্ষেত্রে যাত্রীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে, সামজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে লঞ্চ চলাচলে সরকারের নির্দেশনা থাকলেও তার কোনটাই মানা হচ্ছে না। বরং সরকারি নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে লঞ্চ স্টাফরা যাত্রী উঠাচ্ছেন এবং যাত্রীরা যার যার মতো গাদাগাদি করে ছিট নিয়ে বসে আছেন। গত ৩১ মে থেকে ৯ জুন পর্যন্ত ১০ দিন একই চিত্র ছিল বলে নিশ্চিত করেছে লঞ্চ ঘাটের বিভিন্ন হকার ও যাত্রীরা।
স্থানীয় হকার ও যাত্রীরা জানায়, প্রথম ৩/৪ দিন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট, প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা, বিআইডব্লিউটিএ’র কর্মকর্তারা এবং র‌্যাব-পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নজরদারি ও তদারকি ছিলো। কিন্তু ৫/৬ দিন ধরে লঞ্চ ঘাটে কারও কোন নজরদারি বা তদারকি নেই। এর ফলে স্বাস্থবিধির তোয়াক্কা না করে লঞ্চ স্টাফরা তাদের খেলাল-খুশি মত যাত্রী উঠাচ্ছেন এবং যাত্রীরাও তাদের মত করে যেখানে-সেখানে ছিট নিয়ে গাদাগাদি করে বসে পড়ছেন।
এমভি প্রিন্স আওলাদ-৭ লঞ্চের স্থানীয় বুকিং ইনচার্জ আবদুল আজিজ বরিশালটাইমসকে বলেন, ‘সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে জীবাণুনাশক ওষুধ স্প্রে করে যাত্রীদের লঞ্চে উঠানো হচ্ছে। তার পরও সমস্যা হচ্ছে যে, ডেকের যাত্রীদের বেশিরভাগই গ্রামের লোকজন। তারা কিছু শুনতেও চায় না এবং মানতেও চায় না। গাদাগাদি করে একজনের পাশে আকেরজন বসে পড়েন। তারপরও আমরা চেষ্টা করছি সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার।’ এ ব্যাপারে পটুয়াখালীর নদী বন্দর কর্মকর্তা ও বিআইডব্লিউটিএ’র সহকারী পরিচালক খাজা সাদিকুর রহমান বরিশালটাইমসকে জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে লঞ্চে যাত্রী উঠানোর জন্য লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারপরও যাত্রীদের মধ্যে সচেতনতার অভাব রয়েছে যথেষ্ট। তারা স্বাস্থ্যবিধি মানতে চাচ্ছে না এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে চাচ্ছে না। স্থানীয় প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতায় সরকারি নির্দেশনা মেনে লঞ্চ চলাচল এবং যাত্রীদের লঞ্চে উঠার বিষয়টি তদারকি করছে।’

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com