বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
কাউখালীর সমাজ সেবক খসরুর পথ চলা

কাউখালীর সমাজ সেবক খসরুর পথ চলা

কাউখালী প্রতিবেদক ॥ আজ থেকে ২০ বছর আগে মানুষের সেবা করার ব্রত নিয়ে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার আব্দুল লতিফ খসরু অভাব, অনটন, অসহায় আর অসুস্থদের পাশে দাড়ান। এখন তার সেবা করা নেশা হয়ে দাড়িয়েছে। তিনি উপজেলার কেউন্দিয়া গ্রামের আব্দুল আউয়াল তালুকদারের পুত্র। মানুষের সেবা করার জন্য তিনি কি শীত, বৃষ্টি, রৌদ্র, এমনকি ঝড়-বন্যা কোন কিছুতেই তার পথ চলা থেমে নেই। শুধুই ছুটে চলা দিন-রাত। তার উদ্দেশ্য একটাই অসহায়, দুঃস্থ, অসুস্থ্যদের জন্য কিছু একটা করা। উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে বেড়ান আব্দুল লতিফ খসরু। দিন রাত পুরোটা সময়ই কাটে তার মানুষের সেবা করে। তিনি উপজেলার যেকোন এলাকার মানুষের অভাব অনটন বা অসুস্থ্যের সংবাদ পেলে নিজের সাধ্যমত সহযোগীতা নিয়ে তাদের পাশে দাড়ান। তবে এখন তার এ কাজে সহযোগীতা করার জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন অনেকেই। আর যে যখন যা সাহায্য দিচ্ছেন, তাই নিয়ে ছুটে যাচ্ছেন অসহায়দের কাছে। তিনি অসহায়দের কখনো খাবার, কখনো বা কাপড় নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ান।
তিনি শুধু অসহায়দের অন্য বস্ত্র দিয়েই সহযোগীতা করছেন তা নয়। তিনি এই সব অসহায় পরিবারের সন্তানদের লেখাপড়ার জন্য শিক্ষা উপকরণ হিসাবে বই, খাতা, কাগজ, কলম কিনে দিচ্ছেন। শুধু তাই নয় নিজেই শিক্ষক হিসেবে এসব শিশু শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া করাচ্ছেন। কখনো নদীর পাড়ে, বাড়ির উঠানে কখনো বা নৌকায় করে নদীতে ভাসমান পাঠশালার মাধ্যমে তাদের লেখা পড়া করান। উপজেলার অনেক অসহায় পরিবারের সন্তানরা তার সহযোগীতায় লেখাপড়া করে এস,এস,সিতে জিপিএ ৫ পেয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করছে। এদের মধ্যে আলামীন, জান্নাতী মাওয়া মীম, মঞ্জিলারাও রয়েছে।
শিক্ষার্থী মঞ্জিলা বলেন, আমার বাবা একজন জেলে। তিনি যা আয় করেন তা দিয়ে আমাদের ভরণ পোষণই চলছিল না। এ কারনে আমার লেখাপড়ার খরচ আমার পরিবারের পক্ষে চালানোর সম্ভব ছিল না। আমার লেখা পড়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছিল, ঠিক এমনি সময় খসরু কাকা আমার লেখা পড়ার জন্য সহযোগীতা নিয়ে এগিয়ে আসেন। আমি তার এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষকগনের সহযোগীতা ও উৎসাহের জন্যই এস, এস, সিতে জিপিএ ৫ পেয়েছি। তিনি আমার উচ্চ শিক্ষার জন্য বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনের মাধ্যমে লেখাপড়ার খরচ চালানোর ব্যবস্থা করে দেন। আব্দুল লতিফ খসরু প্রতিবন্ধীদের শিক্ষার জন্য তৈরি করেছেন প্রতিবন্ধী বিদ্যালয়।
তিনি কোন মানুষের শরীর অসুস্থতার খবর পেলে ছুটে যান তার বাড়িতে। তার সাধ্যমত চেষ্টা করেন তাকে চিকিৎসা করানোর জন্য। উপজেলার দাশেরকাঠী গ্রামের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সুমাইয়া ও আমরাজুড়ী আবাসনের সোহাগ কিডনী রোগে ভুগছিলেন। এদের বিষয় খসরু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে পোষ্ট দিয়ে সকলের মাঝে তুলে ধরেন। ফেইসবুকে তার এই পোষ্ট দেখে অসুস্থ্য সুমাইয়ার চিকিৎসার জন্য অনেকের সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেন। সেই সহযোগীতা নিয়ে চিকিৎসা করে সুমাইয়া এখন সুস্থ্য জীবন যাপন করছে। তেমনি অসুস্থ্য সোহাগের কথা লিখে ফেইসবুকে পোষ্ট দেন। সেই পোষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ খালেদা খাতুন রেখা দেখে নিজেই সকলের কাছে তার চিকিৎসার জন্য সহযোগীতা কামনা করেন। তিনি আবাসনে গিয়ে অসুস্থ্য সোহাগকে নিয়ে এসে চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন এবং তার পরিবারের এক মাসের খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com