শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
নবনির্বাচিত উজিরপুর-বানারীপাড়া উপজেলা ও পৌর বিএনপি’র আহবায়ক কমিটির নেতৃবৃন্দকে সান্টুর অভিনন্দন, তৃণমূল নেতাকর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটি করার নির্দেশ নওগাঁ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত সন্ধ্যা নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এম.পি ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ দিবস উপলক্ষ্যে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী’র পক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে : পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কে ক্ষমতায় না আনলে সুবিধাভোগীদের সকল ভাতা বন্ধ হয়ে যাবে -পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ৪ ফেব্রুয়ারী বরিশাল বিভাগীয় বিএনপির সমাবেশ সফল করতে গৌরনদী ও আগৈলঝাড়া উপজেলা বিএনপির প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত ৪ ফেব্রুয়ারী বিএনপি বরিশাল বিভাগীয় সমাবেশ সফল করতে কাশিপুর ইউনিয়ন বিএনপির প্রচার পত্র বিতরণ ৪ ফেব্রুয়ারী বিএনপির বরিশাল বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে সদর উপজেলা বিএনপির উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ রিক্সা পেয়ে আনন্দে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীকে জড়িয়ে কাঁদলেন অক্ষমবৃদ্ধ ও দুপা-বিহীন প্রতিবন্ধী
বরিশালে চিকিৎসক সংকটে বেহাল স্বাস্থ্যসেবা

বরিশালে চিকিৎসক সংকটে বেহাল স্বাস্থ্যসেবা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ চিকিৎসক সংকটে চরম বেহাল দশায় পরেছে বরিশাল বিভাগের কোটি মানুষের স্বাস্থ্যসেবা। বিভাগের ছয়টি জেলা হাসপাতাল, ৩৪টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (শেবাচিম) চিকিৎসক সংকটে ব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা।
সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, বিভাগের ১ হাজার ১৩১ জন চিকিৎসক পদের ৫৩৮টিই শূন্য এবং বিভাগে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) মঞ্জুরিকৃত ১০২টির মধ্যে ৫৮টি পদ শূন্য রয়েছে। শেবাচিমের অবস্থা আরও করুণ। সেখানকার জনবল কাঠামো ১৯৬৮ সালের ৩৬০ বেড অনুসারে অর্ধেকও নেই। অথচ কাগজে-কলমে এ হাসপাতালটি হাজার বেডে উন্নীত হয়েছে। অথচ গোটা দক্ষিণাঞ্চলবাসীর একমাত্র ভরসাস্থল হচ্ছে শেবাচিম হাসপাতাল।
শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ মোহাম্মদ বাকির হোসেন জানান, চিকিৎসকের ২২৪টি পদ থাকলেও ১২৭টি পদ এখনো শূন্য। টেকনোলজিস্টের পদ রয়েছে মাত্র ছয়টি, নার্স ব্যতিত অন্যান্য পদের জনবল অর্ধেকও না থাকায় চিকিৎসা ব্যবস্থা চলছে জোড়াতালি দিয়ে। স্থায়ী চিকিৎসক ও জনবল না থাকায় বিভাগের মধ্যে একমাত্র আইসিইউ থাকা শেবাচিমে মুমূর্ষ রোগিদের সেবাও চলছে জোড়াতালি দিয়ে। হাসপাতালে মোট ২৮টি আইসিইউ’র মধ্যে করোনায় আক্রান্তদের জন্য রয়েছে ১৮টি।
শেবাচিম কর্তৃপক্ষ জানান, হাসপাতালের শুরুতে আইসিইউ না থাকায় পরবর্তীতে চিকিৎসক ও টেকনোলজিস্ট নিয়োগ হয়নি। অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের চিকিৎসক দিয়ে এবং ১০ জন নার্সকে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে করোনা ওয়ার্ডের আইসিইউ সেবা চালু রাখা হয়েছে। করোনা ওয়ার্ডের আইসিইউতে ১০ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ওয়ার্ড ব্যতীত বাকি ১০টি আইসিইউতে সেবা পাচ্ছে না সাধারণ রোগিরা।
সূত্রমতে, হাসপাতালের ২২টি বিভাগীয় প্রধান পদে একজন করে অধ্যাপক থাকার কথা থাকলেও এ হাসপাতালে রয়েছেন মাত্র একজন। গুরুত্বপূর্ণ বিভাগের একাধিক চিকিৎসক পদ শূন্য থাকায় রোগিদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।
সূত্রগুলো আরও জানান, দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের উন্নত চিকিৎসার জন্য ১৯৬৮ সালে ৩৬০ বেড নিয়ে যাত্রা শুরু করার পর পরবর্তীতে কাগজে-কলমে ৫০০ ও হাজার বেডে উন্নীত হলেও রোগী ভর্তি থাকতো প্রায় দুই হাজার। বর্তমানে অন্যান্য ওয়ার্ডের রোগি কমলেও করোনা ওয়ার্ডে রোগিদের চিকিৎসায় ফুটে উঠেছে অসহায়ত্ব। শেবাচিম হাসপাতালের পার্শ্ববর্তী পাঁচতলার নতুন ভবনের চতুর্থতলা পর্যন্ত ১৫০টি করোনা বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন প্রায় ১২০ জন রোগি।
সেখানকার রোগি ও তাদের স্বজনরা জানান, চিকিৎসক, নার্স কারোর দেখা পাওয়া যায়না। সর্বত্র নোংরা পরিবেশ। করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসার চেয়ে তারা বাসা-বাড়িতেই ভালো ছিলেন। তাই অনেকেই স্বেচ্ছায় করোনা ওয়ার্ড ত্যাগ করতে বাধ্য হচ্ছেন।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডাঃ শ্যামল কৃষ্ণ মন্ডল জানান, বিভাগের ছয় জেলা ও উপজেলায় যেসব স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও হাসপাতাল রয়েছে সেখানে চিকিৎসকের পদের প্রায় অর্ধেক পদ শূন্য রয়েছে। একই সাধে শূন্য রয়েছে নার্স, টেকনোলজিস্টসহ তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদ। সম্প্রতি নিয়োগ পাওয়াদের মধ্যে বরিশালের ৬৫ জন চিকিৎসককে শেবাচিমসহ বিভিন্ন হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে দেওয়া হয়েছে।
তিনি আরও জানান, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য বিভাগে পাঁচ শতাধিক আইসোলেশন বেডের ব্যবস্থা থাকলেও আইসিইউ রয়েছে শেবাচিমের ১৮টি। এছাড়া বিভাগের কোথাও বেসরকারিভাবে আইসিইউ ব্যবস্থাপনা নেই। চিকিৎসকসহ জনবল সংকটের বিষয়টি একাধিকবার সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com