রবিবার, ২২ নভেম্বর ২০২০, ১১:০৭ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বরগুনায় মা-বাবাকে মারধর, সেই মেয়ে গ্রেফতার কম ঘুষে বেশি ঘুরাঘুরি,বেশি ঘুষে কাজ তাড়াতাড়ি: ভোলায় ভূমি অফিস দুর্নীতির আখড়া বানারীপাড়ায় ৩টি নতুন স্কুল ভবনের উদ্বোধন করলেন এমপি শাহে আলম ছাত্রলীগ নেতার পরকীয়ায় তছনছ প্রবাসীর ১৭ বছরের সংসার আগৈলঝাড়ায় অগ্নিকা-ে ক্ষতিগ্রস্তদের সরকারী ঢেউটিন ও অর্থ সহায়তা প্রদান বরিশালে নিজের কুকীর্তি ঢাকতে বিচ্ছিন্ন কর্মীদের দিয়ে মানববন্ধন করিয়েছে মিঠু বরিশালে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা ও ডিজিটালাইজ বিষয়ক প্রশিক্ষণ শুরু বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ বিরোধীতার প্রতিবাদে মানববন্ধন বরিশালে ড্রামে পাওয়া মৃত নারীর পরিচয় মিলেছে লালমোহন বর্নালী নাইট ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন ৷
ব্যয় সংকোচনে সরকার

ব্যয় সংকোচনে সরকার

কোভিড ১৯-এর প্রভাবে দেশের অর্থনীতি, ব্যবসাবাণিজ্যে বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে। ফলে মৌলিক প্রয়োজনের বাইরে খরচ করতে চাচ্ছে না সরকার। ফলে উন্নয়ন ও পরিচালন ব্যয় সংকোচন নীতি নিয়েছে সরকার। খবর অর্থ বিভাগ সূত্রের।

অর্থ বিভাগের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা আমাদের সময়কে বলেন, করোনা মোকাবিলায় সরকার ১ লাখ ৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছে। ইতোমধ্যে প্রণোদনা বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। এ ছাড়া রাজস্ব আহরণে বড় ধরনের ঘাটতির কারণেই সরকার ব্যয় সংকোচনে নেমেছে। ইতোমধ্যে উন্নয়ন প্রকল্পে অপ্রয়োজনীয় অর্থছাড় বন্ধ করেছে। একইভাবে সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও অন্য প্রতিষ্ঠানের পরিচালন ব্যয় কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যে এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করেছে অর্থ বিভাগ।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্র জানিয়েছে, সদ্য বিদায়ী ২০১৯-২০ অর্থবছরে সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৮৫ হাজার কোটি টাকা কম রাজস্ব আদায় হয়েছে। মূল লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এটি ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা কম।

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর আমাদের সময়কে বলেন, ব্যয়ে কৃচ্ছ্রসাধন করতে হবে। যেহেতু সরকারের রাজস্ব আহরণ কমে গেছে। বিশাল লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া হয়েছে। এনবিআরকে ৩ লাখ ৩০ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ব্যবসাবাণিজ্যের গতি-প্রকৃতি দেখে মনে হচ্ছে আড়াই লাখ কোটি টাকার বেশি আদায় হবে না। এ জন্য ব্যয় কমাতে হবে। এর বিকল্প নেই।

জানা গেছে, ব্যয় সংকোচন করতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। নিম্নঅগ্রাধিকার পাওয়া প্রকল্পে অর্থছাড় আপাতত স্থগিত করেছে। আর ‘মধ্যম অগ্রাধিকার’ প্রকল্পের

যেসব খাতে না করলেই নয়, এমন টাকা খরচের ক্ষেত্রে নিজস্বভাবে ও স্বীয় বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নিতে হবে মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে। পাশাপাশি ‘সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রকল্পের’ অর্থ ব্যয় অব্যাহত রাখতে হবে। তবে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্প এ নির্দেশের আওতার বাইরে থাকবে।

জানা গেছে, করোনার প্রকোপ মোকাবিলায় সরকারের অতিরিক্ত ব্যয় বেড়ে গেছে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন শ্রেণির জন্য ১ লাখ ৩ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা দিয়েছেন। এর মধ্যে শিল্প ঋণের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকা, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতের ২০ হাজার কোটি টাকা, রপ্তানিমুখী শিল্পের শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতনভাতা পরিশোধে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়। পাশাপাশি নিম্নআয়ের শ্রেণির মানুষের ও কৃষকের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকা, রপ্তানি উন্নয়ন ফান্ড ১২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা, প্রিশিপমেন্ট ঋণ ৫ হাজার কোটি টাকা, গরিব মানুষের জন্য সহায়তা ৭৬১ কোটি টাকাসহ প্রায় ১ লাখ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা দেওয়া হয়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com