শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:০২ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও তারেক রহমানের সুস্থতা কামনায় গৌরনদীতে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত গৌরনদীতে এতিমখানা ও মাদ্রাসার দরিদ্র, অসহায় শিক্ষার্থীদের মাঝে ঈদ বস্ত্র বিতরণ ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বরিশালে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের কারাবন্ধী ও রাজপথে সাহসী সৈনিকদের সম্মানে ইফতার দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত আদালতে মামলা চলমান থাকা অবস্থায়, দখিনের খবর পত্রিকা অফিসের তালা ভেঙে কোটি টাকার লুণ্ঠিত মালামাল বাড়িওয়ালার পাঁচ তলা থেকে উদ্ধার, মামলা নিতে পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকা গলাচিপা উপজেলা প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন, সভাপতি হাফিজ, সম্পাদক রুবেল চোখের জলে বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতি কাজী বাবুলকে চির বিদায় বিএনপি নেতা জহির উদ্দিন স্বপন কারামুক্ত উচ্চ আদালতে জামিন পেলেন বরিশাল মহানগর বিএনপির মীর জাহিদসহ পাঁচ নেতা তসলিম ও পিপলুর নেতৃত্বে বরিশাল জেলা উত্তর ও দক্ষিণ যুবদলের বরিশাল নগরীতে কালো পতাকা মিছিল হিউম্যান ফর হিউম্যানিটি ইন্টারন্যাশনাল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গৌরনদীতে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে বই বিতরণ
রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধে ক্ষোভ ১৪ দলে

রাষ্ট্রীয় পাটকল বন্ধে ক্ষোভ ১৪ দলে

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধে সরকারের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ বিরাজ করছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ক্ষমতাসীন চৌদ্দ দলের শরিকদের মাঝে। তাদের দাবি, রাষ্ট্রীয় পাটকলগুলো বন্ধের ঘোষণা মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকারের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা। যেটা কিনা যুদ্ধাপরাধী মতিউর রহমান নিজামীদেরই স্বপ্ন ছিল। বিএনপি সরকারের শিল্পমন্ত্রী থাকাকালীন এশিয়ার বৃহত্তম পাটকল আদমজী বন্ধ করে দিয়েছিলেন তিনি। এদিকে পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্তে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক বিবৃতি না দিলেও ক্ষোভ রয়েছে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির মধ্যেও। আগামীকাল বুধবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে এর বহির্প্রকাশ ঘটবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

চৌদ্দ দলের শরিকদের দাবি, পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে জাতি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে। খুব অসময়ে এ সিদ্ধান্ত নিল সরকার। এতে মানুষের সংকট আরও বেড়ে যেতে পারে। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন আমাদের সময়কে বলেন, ‘সরকার লোকসানের কথা বলে পাটকলগুলো বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অথচ জাতির জনকের প্রতিশ্রুতি ছিল লোকসান হলেও পাট শ্রমিক ও চাষিদের কথা বিবেচনা করে পাটকল চালু রাখা হবে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের এ সিদ্ধান্ত অগণতান্ত্রিক ও আত্মঘাতী। স্বাধীনতার পর পাটকল বন্ধ করার জন্য অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে। বিএনপি ক্ষমতা থাকাকালে আদমজী পাটকল বন্ধ করে তৎকালীন পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী নিজামী বলেছিলেন যে, আদমজী বন্ধ করে অনেক দিনের স্বপ্ন তারা পূরণ করেছে। এবার সব পাটকল বন্ধ করে দিয়ে অতীত সরকারের মতোই ষড়যন্ত্রকারীদের জিতিয়ে দিল।’

সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া আমাদের সময়কে বলেন, ‘সরকারের এ সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে লুটেরাশ্রেণিকে পৃষ্ঠপোষকতা করা হয়েছে।’ জাসদ একাংশের সভাপতি শরীফ নূরুল আম্বিয়া বলেন, ‘এখন বৈশ্বিক মহামারী চলছে। এমন অবস্থায় সরকার এ সিদ্ধান্ত না নিলেও পারত।’

বন্ধ না করে আধুনিকায়নের মাধ্যমে দেশীয় পাটশিল্প টিকিয়ে রাখতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান চৌদ্দ দলের নেতারা। তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পর দেশের প্রধান শিল্প পাটকলগুলো রাষ্ট্রায়ত্তকরণ করা ছিল চুয়ান্নের যুক্তফ্রন্ট্রের ২১ দফা ও ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে ছাত্র সমাজের ১১ দফার অন্যতম অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন। গত ৪০ বছর ধরে ক্ষমতাসীন সরকারগুলো এশিয়ার বৃহত্তম পাটকল আদমজীসহ সব পাটকল বন্ধ বা বেসরকারিকরণ করে সে অঙ্গীকারকে পদদলিত করেছে।

২০০২ সালে বিএনপি-জামায়াত সরকারের শিল্পমন্ত্রী নিজামীর হাত দিয়ে দেশের বৃহত্তম আদমজী পাটকল বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর আজ মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী সরকার মুক্তিযুদ্ধে খেতাবপ্রাপ্ত মন্ত্রীর হাত দিয়ে বাকি ২৫টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাশের দেশ ভারত যখন পাটশিল্পকে গুরুত্ব দিচ্ছে ঠিক তখন বাংলাদেশ সরকারের এমন সিদ্ধান্ত হতাশাজনক।

এদিকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙা আমাদের সময়কে বলেন, ‘জানি না কেন সরকার এ সিদ্ধান্ত (পাটকল বন্ধ) নিল। জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে এমন সিদ্ধান্ত না নিলেও পারত। এ বিষয়ে জাতীয় পার্টি সংসদে আনুষ্ঠানিকভাবে তার প্রতিক্রিয়া জানাবে।’

ধারাবাহিকভাবে লোকসানে থাকা রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর প্রায় ২৫ হাজার স্থায়ী শ্রমিককে স্বেচ্ছা অবসরে (গোল্ডেন হ্যান্ডশেক) পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) অধীনে থাকা ২৬টি পাটকলের মধ্যে মনোয়ার জুট মিল বন্ধ রয়েছে। এসব কারখানায় ২৪ হাজার ৮৬৬ স্থায়ী শ্রমিকের বাইরে তালিকাভুক্ত ও দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিক আছে প্রায় ২৬ হাজার। বেসরকারি খাতের পাটকলগুলো লাভ দেখাতে পারলেও বিজেএমসির আওতাধীন মিলগুলো বছরের পর বছর লোকসান করে যাচ্ছে, যার পেছনে অব্যবস্থাপনা, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com