শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর ২০২০, ০৮:২৩ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
দেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মান করবে সরকার- পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মঠবাড়িয়ার দাউদখালীর ফুলতলার নাজুক ব্রিজ : ভোগান্তিতে ৫ গ্রামের মানুষ আগৈলঝাড়ায় পাথর বোঝাই ট্রাক উল্টে পানিতে মহিপুর ইউপি নির্বাচন : ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শনের দাবি স্বতন্ত্র প্রার্থীর ঝালকাঠিতে ১৭২ টি মন্ডপে দুর্গাপুজার প্রস্তুতি বাউফলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ইট সুরকি লোপাটের অভিযোগ বানারীপাড়ায় সড়ক প্রশস্ত করার নামে ভেঙে ফেলা হলো ঐতিহাসিক নিদর্শন সাড়ে তিনশ বছরের পুরানো মুঘল নিদর্শন বিবিচিনি শাহী মসজিদ ঝালকাঠিতে মা ইলিশ রাক্ষায় গভীর রাতে পুলিশ সুপারের অভিযান বানারীপাড়ায় একের পর এক উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করছেন শাহে আলম এমপি
মঠবাড়িয়ার দাউদখালীর ফুলতলার নাজুক ব্রিজ : ভোগান্তিতে ৫ গ্রামের মানুষ

মঠবাড়িয়ার দাউদখালীর ফুলতলার নাজুক ব্রিজ : ভোগান্তিতে ৫ গ্রামের মানুষ

পিরোজপুর প্রতিবেদক ॥ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার দাউদখালী ইউনিয়নের উত্তর দাউদখালী গ্রামের ফুলতলা বেহাল-ব্রিজের কারণে চলাচলে ভোগান্তিতে পড়েছে এলাকাবাসী। মঠবাড়িয়া ও পার্শ্ববর্তী কাঠালিয়া উপজেলার সংযোগ খালের ব্রীজ দিয়ে ৫ গ্রামের ৫শতাধিক এলাকাবাসীসহ একটি প্রাথমিক ও একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, একটি নূরানী, ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার কোমলমতি শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন জীবনের ঝুঁিক নিয়ে পারাপার করছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে ব্রিজটি উপরের ছাউনি কাঠ দ্বারা নির্মাণ করা হয়। কিন্তু ব্রীজ নির্মাণের একবছর যেতে না যেতেই কাঠগুলো নষ্ট হয়ে যায়। এরপরে স্থানীয় লোকজন নিজস্ব উদ্যোগে লোহার অ্যাঙ্গেলের উপরে সুপারিগাছ ও বাঁশ ফেলে চলাচল করতে থাকে। এরমধ্যে গত ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে ও জোয়ারের প্রবল ¯স্রোতে কাঠ ও বাঁশ ভেসে যায়। পুনরায় স্থানীয়রা কাঠদিয়ে মেরামত করলেও তা তেমনভাবে চলাচলের উপযোগী হয়নি। এ নাজুক ও ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজ দিয়ে মঠবাড়িয়ার দাউদখালী ও শিলানিয়া ও মিরুখালী গ্রাম এবং কাঠালিয়া উপজেলার আমুয়া,মরিচবুনিয়া এ পাঁচ গ্রামের মানুষসহ ও চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে।
দাউদখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ ফজলুল হক খাঁন রাহাত স্থানীয়দের দুর্ভোগের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন-ব্রীজ নির্মাণে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ না পাওয়ায় নতুন করে ব্রীজ নির্মাণ করা যাচ্ছে না। এ বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্যকে অবহিত করেছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উর্মি ভৌমিক বলেন, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিষয়টি লিখিত ভাবে জানালে অর্থ যোগান সাপেক্ষে জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত সময়ের মধ্যে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com