রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:২৫ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বরিশালে করোনা ভ্যাকসিন ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত পায়রা বন্দরের ৭৫ কি:মি: দীর্ঘ রাবনাবাদ চ্যানেলের নাব্যতা বজায় রাখতে জরুরি রক্ষণাবেক্ষন ড্রেজিং কাজের উদ্বোধন করলেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি বানারীপাড়ায় অবৈধ ট্রলিগাড়ি কেড়ে নিলো একই পরিবারের ২ জনের প্রাণ॥ গুরুত্বর আহত-২ নাব্য সঙ্কটের স্থায়ী সমাধান না হওয়ায় হুমকির মুখে ঢাকা-বরিশাল নৌরুট ৪ দফা দাবিতে বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের কলাপাড়ায় পৌরসভা নির্বাচনী মাঠ সরগরম ঝালকাঠি সদর উপজেলার গাবখান ধানসিঁিড় ইউনিয়নে শীতবস্ত্র বিতরণ বরগুনায় নৌকার প্রচার কার্যালয়ের কাছে ককটেল বিষ্ফোরণ ভোলায় ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর অভিযোগ, চিকিৎসকদের ঘেরাও নগরীতে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার
দুর্ভোগের আরেক নাম ‘ইলিশা ফেরিঘাট’

দুর্ভোগের আরেক নাম ‘ইলিশা ফেরিঘাট’

ভোলা প্রতিবেদক ॥ জোয়ার এলেই তলিয়ে যায় ভোলার ইলিশা ফেরিঘাটের টার্মিনাল। এতে দুর্ভোগে পড়তে হয় শত শত পণ্যবাহী যানবাহনসহ সাধারণ যাত্রীদের। এই বেহাল দশা থেকে কবে পরিত্রাণ পাবে সেই প্রশ্ন এখন ভুক্তভোগীদের। কর্তৃপক্ষকে বারবার জানানোর পরও নিচ্ছে না কোনো ব্যবস্থা। স্থানীয় ব্যাবসায়ী ইসমাইল জানান, ইলিশা ফেরিঘাট দিয়ে ২১টি জেলার দিয়ে শতশত যানবাহন পারাপার হচ্ছে। একই সঙ্গে মানুষও যাতায়াত করছেন। একটু বৃষ্টি বা জোয়ার আসলেই শুরু হয় দুর্ভোগ। যাত্রীদের নৌকা দিয়ে ফেরিতে উঠতে হয়। এতে নারী ও বাচ্চাদের জন্য দুর্ঘটনার ঝুঁকিও রয়েছে। এ পর্যন্ত আহত হয়েছে অনেক যাত্রী। বিষয়টি কর্তৃপক্ষ জানলেও এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয় নি। চরফ্যাশনের যাত্রী মাহাবুবুর রহমানসহ কয়েকজন জানান, আমরা বৌ-বাচ্চা ও মালামাল নিয়ে চট্রগ্রাম যাব। ফেরির টার্মিনালের এমন অবস্থা জোয়ারের পানির কারণে তা দেখা যাচ্ছে না। নৌকা দিয়ে পার হতে হবে। উৎপেতে রয়েছে নৌকার মাঝিরা। তারা পারাপারে মোটা অংকের টাকা দাবি করে। ট্রাক ড্রাইভার জসিম মিয়া, আব্দুল কালাম, শাহ আলম অভিযোগ করে বলেন, আমরা চরফ্যাশন থেকে সবজি নিয়ে এসেছি। যাবো চট্রগ্রাম। এখানে শতশত যানবাহনের সিরিয়াল। অন্যদিকে বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে টার্মিনাল দেখা যায় না। অনুমানের উপর ফেরিতে উঠতে গেলে সবজি ভর্তি ট্রাক নদীতে পড়ার সম্ভবনা রয়েছে। আমরা দুই ধরনের সমস্যায় আছি, দেরি হলে সবজি নষ্ট হয়ে যায়। পানির মধ্যে দিয়ে ফেরিতে উঠলে নদীতে পড়ার সম্ভবনা রয়েছে। এতে লোকসানের মুখে আছি আমরা। আমরা দ্রুত টার্মিনাল সংস্কারের দাবি জানাই। ভোলা লক্ষ্মীপুর ঘাটের ফেরি ব্যবস্থাপক ইমরান হোসেন জানান, আমি বর্তমানে ছুটিতে আছি। বিষয়টি আমি শুনেছি। ফেরি টার্মিনাল সংস্কার করার জন্য কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। আশা করি দ্রুত সমাধান হয়ে যাবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com