রবিবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:৫৫ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
তোফায়েল আহমেদের সহধর্মিণীর রোগমুক্তি কামনা করে লালমোহনে আওয়ামী লীগের দোয়া ও মোনাজাত মুজিববর্ষ উপলক্ষে তজুমদ্দিনে ১৮ পরিবারের কাছে ঘরের চাবি ও জমির দলিল হস্তান্তর করেন সড়ক দূর্ঘটনায় আহত আ’লীগ নেতার সুস্থতায় এমপি শাওন’র দোয়া কামনা প্রধানমন্ত্রী সারা দেশের সাথে একযোগে পটুয়াখালীতেও ঘর হস্তান্তর করেন বাউফলের ১০ গৃহহীন পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর গৃহ হস্তান্তর পৌরসভা নির্বাচন, কলাপাড়ায় অধিকাংশ প্রার্থীর বিরুদ্ধে ফৌজদারী অপরাধের মামলা সাংবাদিকদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে ভাণ্ডারিয়ায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ শোক সংবাদ – প্রফেসর আব্দুল হালিম উকিল প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর পেলো আগৈলঝাড়ার ৩৬ পরিবার আগৈলঝাড়ায় কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা
কামরানের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন

কামরানের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন

সিলেট সিটি করপোরেশন গঠিত হওয়ার পর মেয়র হন বদরউদ্দিন আহমদ কামরান। দ্বিতীয় মেয়াদেও মেয়র নির্বাচিত হন তিনি। মেয়রের আসনে না থাকলেও সিলিটবাসীর কাছে ‘মেয়র কামরান’ হিসেবেই তিনি পরিচিত ছিলেন।

বদরউদ্দিন আহমদ কামরান অল্প বয়সেই রাজনীতিতে পা রাখেন। ১৯৭২ সালে উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র থাকাবস্থায় তিনি সিলেট পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হন। জনপ্রিয়তার কারণে এলাকাবাসীো জোর করে তাকে কমিশনারে দাঁড় করান।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি বদরউদ্দিন আহমদ কামরান টানা তিনবার সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। সর্বশেষ সম্মেলনে তিনি সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ থেকে সরে যান। পরে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৮১ সদস্যবিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদের হাত ধরে ছাত্র জীবনে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে আসেন কামরান। ১৯৬৮-৬৯ এর উত্তাল সময়ে বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের মিছিল যাওয়ার শুরু। সরকারি চাকরিজীবী বাবা-প্রথমে আপত্তি করলেও এক সময় মেনে নেন।
বদরউদ্দিন আহমদ কামরান ১৯৫৩ সালে জন্মগ্রহণ করেন। সিলেটের জিন্দাবাজার দুর্গাকুমার পাঠশালা ছিল তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এরপর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক, এমসি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন কামরান। উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ার সময়ই ৬৪২ ভোট পেয়ে তৎকালীন সিলেট পৌরসভার ৩নং তোপখানা ওয়ার্ড থেকে দেশের সর্বকনিষ্ঠ পৌর কমিশনার নির্বাচিত হন তিনি। কমিশনারের দায়িত্ব কাঁধে নিয়েই কামরান এমসি কলেজে বিএ-তে ভর্তি হন। মদন মোহন কলেজ থেকে ১৯৭৬ সালে স্নাতক শেষ করেন তিনি।

২০০৩ সালে সিলেট সিটি করপোরেশন গঠিত হওয়ার পর প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন বদরউদ্দিন আহমদ কামরান। ওয়ান ইলেভেনের সময় কারাগারে যেতে হয় কামরানকে। তখন ১৮ মাস তিনি কারাবন্দী ছিলেন। কারাগারে থেকেই ২০০৮ সালের সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নেন কামরান। নির্বাচনের দিনও তিনি কুমিল্লা কারাগারে বন্দী ছিলেন। এ নির্বাচনে ৮০ ভাগ ভোটই কামরানের বাক্সে জমা পড়েছিল। সিটি করপোরেশনের সকল ভোটকেন্দ্রে বিজয়ী হয়ে তিনি নজির সৃষ্টি করেন। এমনকি নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী সকল প্রার্থীর জামানতও বাতিল হয়েছিল। বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন কীর্তি আর কেউই গড়তে পারেননি।

তবে সিলেটের জনপ্রিয় এ নেতা ২০১৩ সালে সিলেট সিটি করপোরেশেনের তৃতীয় নির্বাচনে বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে হেরে যান। ২০০১৮ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনেও তিনি আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে হারেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com