শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:১২ পূর্বাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
উজিরপুর ও বানারীপাড়ায় এস. সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টুর নেতৃত্বে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও আলোচনা সভা আসন্ন বিসিসি নির্বাচন: তৃণমুলের দাবি সান্টু তৃণমুলের নিরেট কর্মী থেকে কেন্দ্রিয় নেত্রী ও বরিশাল বিএনপির অভিভাবক রাজনৈতিক অনবদ্যতায় শিরিন দখিনের খবরের প্রধান সম্পাদক ডা: সমীর কুমার চাকলাদারের সফল অস্ত্রোপচার বানারীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষ রোপন বানারীপাড়ায় প্লানবিহীন ভবন অপসারনের দাবীতে ব্যাবসায়ীদের মানববন্ধন বানারীপাড়ার সাংবাদিক এস মিজানুল ইসলাম “কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক-২০২১” পেয়েছেন মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী বানারীপাড়ার প্রবাসী হাবিবুর রহমান চালু হওয়ার অপেক্ষায় পটুয়াখালীর দুই মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র হিজলায় ৬শত ৪৭ শিশু শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত
ইচ্ছেমতো অফিসে করেন নলছিটি কৃষি অফিসের কর্মকর্তারা, সেবাবঞ্চিত কৃষকেরা

ইচ্ছেমতো অফিসে করেন নলছিটি কৃষি অফিসের কর্মকর্তারা, সেবাবঞ্চিত কৃষকেরা

ঝালকাঠি প্রতিবেদক ॥ ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার কৃষি কর্মকর্তারা নিজ দফতরে নিয়মিত অফিস করেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। অফিসে এলেও সাড়ে ১০টার পর আসেন অনেকে। কয়েক ঘণ্টা অফিসে কাটিয়ে আবার একটা অজুহাত খাড়া করে নিজের খুশিমতো বাড়ি চলে যান। কর্মকর্তারা নিয়মিত অফিসে না আসায় সেবাবঞ্চিত স্থানীয় লোকজন ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। করোনা অজুহাত এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরের বাইরে থাকায় এ উপজেলার কর্মকর্তারা নিজের ইচ্ছামতো অফিসে আসেন আর যান। নলছিটি পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের (মালিপুর গ্রাম) বাসিন্দা মো. জসিম গাজি ও মো. মানিক কাজি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে কৃষি সংক্রান্ত পরামর্শ নিতে গেলে অফিস স্টাফরা জানান, পৌরসভা ব্লকের দায়িত্বে থাকা উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা লুৎফর রহমান রুবেল অফিসে নেই। রোববার আসলে তাকে পাওয়া যাবে। এরপর কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলির কাছে যেতে চাইলে তার কক্ষ বন্ধ দেখতে পাই। পরে তার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে কল দিলে তিনি

অফিসে আসবেন না বলে জানান। পরে পিয়নের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়েছি।’

ভুক্তভোগীদের দীর্ঘদিনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সাংবাদিকরা একাধিকবার সরেজমিনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পান। এছাড়াও কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলির বিরুদ্ধে সরকারি গাড়ি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করার অভিযোগ রয়েছে। নিয়ম রয়েছে, সরকারি কাজ ছাড়া উপজেলার বাইরে গাড়ি নিয়ে যেতে হলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ও যথাযথ কারণ থাকতে হবে। অথচ তিনি প্রতিনিয়ত সরকারি গাড়ি বরিশাল নগরীতে নিয়ে যান। বাসা বরিশাল শহরে হওয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে সরকারি গাড়িটি বেশিরভাগ সময় ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহারে সুযোগ পেয়ে থাকেন তিনি। এতে জ্বলানি তেল বেশি যাচ্ছে। যা সরকারি কোষাগার থেকে মেটানো হচ্ছে। পাশাপাশি ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে কৃষি বিভাগের। এদিকে মাঠ পর্যায়ে কৃষিকাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা কয়েকজন উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের সঙ্গে কৃষকের কোন সম্পর্ক নেই। এদের মধ্যে পৌরসভা ব্লকে দায়িত্বপ্রাপ্ত লুৎফর রহমান রুবেলকে চেনেন না সংশ্লিষ্ট এলাকার অধিকাংশ কৃষক। কাজে ফাকি দিয়ে তিনি প্রায়ই তার পৈতৃক নিবাস পার্শ্ববর্তী উপজেলা বাকেরগঞ্জে অবস্থান করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। অফিস ও পাঠ পর্যায়ে সরেজমিনে গিয়ে এমন অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া গেছে। নিয়ম অনুসারে উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের সপ্তাহে ৫ দিন মাঠে গিয়ে সরেজমিন কৃষির অবস্থা পর্যবেক্ষণ, কৃষকের সমস্যায় করণীয় বিষয়ক পরামর্শ, কৃষি সংক্রান্ত গুনুত্বপূর্ণ

পরামর্শ প্রদানসহ কৃষির সমস্যা ও সম্ভাবনার চিত্র ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করার কথা। এর পাশাপাশি সপ্তাহে একদিন অফিস করার নির্দেশনা রয়েছে তাদের। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে, লুৎফর রহমানসহ কয়েকজন উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মাঠে না গিয়ে মাঝে-মধ্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে মনগড়া মাঠের তথ্য নিয়ে ঘরে বসেই কৃষির প্রতিবেদন তৈরি করেন। যার ফলে কৃষির মাঠ পর্যায়ের বাস্তব অবস্থা আড়ালেই থেকে যাচ্ছে। এতে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন স্থানীয় কৃষকরা। অভিযোগের ব্যাপারে উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা লুৎফর রহমান রুবেল বলেন, আমার কাজ মাঠে। অফিসে কোন হাজিরা খাতা নেই। শুধুমাত্র সাপ্তাহিক কনফারেন্সের দিন স্বাক্ষর নেয়া হয়। বৃহস্পতিবারও আমি অফিস গিয়েছিলাম। কিন্তু অসুস্থতার কারণে একটু আগেভাগে চলে এসেছি।

নিয়মিত অফিস না করার ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ইসরাত জাহান মিলি বলেন, ‘অভিযোগটি সত্য নয়। আমার সব সময়ই অফিসে থাকা হয়।’ তবে গত বৃহস্পতিবার অফিসে করেছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ওইদিন যাওয়া হয়নি।’ ছুটি নিয়েছিলেন কিনা জানতে চাইলে, তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি। সরকারি গাড়ি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নলছিটিতে গাড়ি রাখায় ব্যবস্থা না থাকায় বরিশালে রাখতে হচ্ছে। তবে সরকারি গাড়ির কোন অব্যবহার হচ্ছে না।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com