সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৫ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বানারীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষ রোপন বানারীপাড়ায় প্লানবিহীন ভবন অপসারনের দাবীতে ব্যাবসায়ীদের মানববন্ধন বানারীপাড়ার সাংবাদিক এস মিজানুল ইসলাম “কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক-২০২১” পেয়েছেন মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী বানারীপাড়ার প্রবাসী হাবিবুর রহমান চালু হওয়ার অপেক্ষায় পটুয়াখালীর দুই মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র হিজলায় ৬শত ৪৭ শিশু শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত ঝালকাঠিতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ বরিশালে জবাইকৃত নিন্মমানের মহিষের মাংসসহ আটক ৩ মহান শিক্ষা দিবস উপলক্ষে বরিশালে ছাত্র সমাবেশ পটুয়াখালীর লাউকাঠী-লোহালিয়া নদীতে মাছের পোনা অবমুক্ত
জোয়ারের পানিতে ভাসছে আমতলীর গাজীপুর বন্ধর ৮০ বছরেও নির্মাণ হয়নি শহর রক্ষা বাঁধ

জোয়ারের পানিতে ভাসছে আমতলীর গাজীপুর বন্ধর ৮০ বছরেও নির্মাণ হয়নি শহর রক্ষা বাঁধ

আমতলী প্রতিবেদক ॥ ৮০ বছরেও নির্মাণ হয়নি গাজীপুর বন্দরের শহর রক্ষা বাঁধ। জোয়ারের পানিতে ভাসছে এখন গাজীপুর বন্দর। জোয়ার-ভাটার সাথে যুদ্ধ করে চলতে হয় ওই বন্দরের ব্যবসায়ীসহ বসবাসকারীদের। গত ৮০ বছর ধরেই এ অবস্থা ভোগ করছে বন্দরে বসবাসরত প্রায় ১০ হাজার বাসীন্দারা। জোয়ারের সময় বন্দর এখন প্রায় ২-৩ ফুট তলিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে পরেছে। বন্দরটিকে পানির হাত থেকে রক্ষায় দ্রুত শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। জানাগেছে, ১৯৪০ সালে আমতলী ও গলাচিপা উপজেলার সীমান্তবর্তী বড় গাবুয়া ও সোনাখালী নদীর মোহনায় গড়ে উঠেছে গাজীপুর বন্দর। তৎকালিন বনিকরা দুই নদীর মোহনাকে ব্যবসার প্রাণ কেন্দ্র হিসেবে বেছে নেন গাজীপুর নামক স্থানকে। ওই ছোট্ট গাজীপুর আজ বৃহৎ বন্দরে পরিনত হয়েছে। দুই উপজেলার সীমান্তবর্তী ৮ হাজার মানুষের বসবাস করছে। দুই উপজেলার অন্তত এক হাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। সপ্তাহে বৃহস্পতি ও শুক্রবার দুই দিন হাট বসে। দক্ষিণাঞ্চলের বৃহত্তম গরুর হাট বসে ওখানে। কিন্তু গত ৮০ বছরেও ওই বন্দরকে রক্ষায় শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা হয়নি। এতে প্রতিদিন জোয়ারে ভাসছে এবং ভাটার শুকাচ্ছে ওই শহরটি। জোয়ার-ভাটার সাথে যুদ্ধ করে বসবাস ও ব্যবসা করতে হয় বন্দরের মানুষের। বড় গাবুয়া ও সোনাখালী দুই নদীর জোয়ারের তোরে পানিতে প্লাবিত হয়ে যায় বন্দরটি। জোয়ারের সময় দোকান পাট বন্ধ করে মালামাল গুছিয়ে রাখতে হয় ব্যবসায়ীদের। আবার ভাটায় মালামাল সাজিয়ে দোকান শুরু করতে হয়। গত ৮০ বছর ধরেই চলছে এমন দুর্বিসহ অবস্থা। যুগের পর যুগ পেরিয়ে গেলেও শহর রক্ষা বাঁধ দিয়ে বন্দরটি রক্ষায় কেউ এগিয়ে আসেননি। এতে ওই শহরের মানুষের প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে। দ্রুত শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করে ওই বন্দরটি রক্ষার দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, তিন দিকে দু’টি নদী বেষ্টিত বন্দর গাজীপুর। দুই নদীর জোয়ারের পানিতে পুরো বন্দর তলিয়ে গেছে। বন্দরের অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসত বাড়ী পানিতে তলিয়ে গেছে। ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ করে নিরবে বসে আছে। মধ্য জোয়ার থেকে ভাটার আগ পর্যন্ত তাদের ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ থাকে। মাসের পনের দিন চলে এমন অবস্থা। তবে শুকনো মৌসুমে এমন সমস্যা হয় না। বর্ষার মৌসুমে তাদের চলে দুর্বিসহ জীবন। চা বিক্রেতা দুলাল হাওলাদার বলেন, দুঃখের কতা আর কি কমু? মোগো দুঃখ কেউ দ্যাহে না। গত ত্রিশ বচ্ছর ধইর‌্যা দোহান দিই। জোয়ার অইলে দোহান গুছাইয়া বইয়্যা থাকতে অয়। আবার ভাডা অইলে দোহান শুরু হরি। জোয়ারের হাতে গোনে মোগো বন্দরটা রক্ষার দাবী হরি। গাজীপুর বন্দরের ব্যবসায়ী সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ আবুল কালাম আজাদ বলেন, সরকার আসে সরকার যায় কিন্তু গাজীপুর বন্দরের পরিবর্তন হয় না। ৮ হাজার মানুষের বসবাস এবং অন্তত এক হাজার ব্যবসায়ী রয়েছে ওই বন্দরে। বর্ষার মৌসুমে ওই বন্দরের ব্যবসায়ীরা জোয়ার-ভাটার সাথে যুদ্ধ করে বসবাস ও ব্যবসা করছে। গত ৮০ বছর ধরেই বন্দর রক্ষার চিন্তা কেউ করেনি। দ্রুত বন্দর রক্ষার জন্য শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবী জানাই। গাজীপুর বন্দর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী রুহুল আমীন হাওলাদার বলেন, গত ৮০ বছর ধরে এই বন্দরটি জোয়ারে ভাসছে এবং ভাটায় শুকাচ্ছে। জোয়ার-ভাটার সাথে লড়াই করেই ব্যবসা ও বসবাস করতে হয়। এই পুরাতন বন্দরটি রক্ষায় শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবী জানাই।
আঠারোগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ হারুন অর রশিদ বলেন, ঐহিত্যবাহী গাজীপুর বন্দরকে রক্ষায় শহর রক্ষা বাঁধ প্রয়োজন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে দ্রুত শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের দাবী জানাই। বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ কায়সার আলম বলেন, গাজীপুর বন্দরকে রক্ষায় শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের আওতায় এনে প্রকল্প তৈরি করে মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হবে। আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন বলেন, গাজীপুর বন্দরটি রক্ষায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ গোলাম সরোয়ার ফোরকান বলেন, গাজীপুর বন্দরের হাজার হাজার মানুষ ও ব্যবসায়ীদের দুঃখ দুর্দশা লাঘবে শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করা প্রয়োজন। দ্রুত এ বন্দরটি রক্ষায় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে দাবী জানাই।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com