বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০১:২৩ অপরাহ্ন

উপ-সম্পাদক :: দিদার সরদার
প্রধান সম্পাদক :: সমীর কুমার চাকলাদার
প্রকাশক ও সম্পাদক :: কাজী মোঃ জাহাঙ্গীর
যুগ্ম সম্পাদক :: মাসুদ রানা
সহ-সম্পাদক :: এস.এম জুলফিকার
প্রধান নির্বাহী সম্পাদক :: মামুন তালুকদার
নির্বাহী সম্পাদক :: সাইফুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক :: আবুল কালাম আজাদ
সংবাদ শিরোনাম :
বানারীপাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে যুবলীগের বৃক্ষ রোপন বানারীপাড়ায় প্লানবিহীন ভবন অপসারনের দাবীতে ব্যাবসায়ীদের মানববন্ধন বানারীপাড়ার সাংবাদিক এস মিজানুল ইসলাম “কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মৃতি পদক-২০২১” পেয়েছেন মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী বানারীপাড়ার প্রবাসী হাবিবুর রহমান চালু হওয়ার অপেক্ষায় পটুয়াখালীর দুই মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র হিজলায় ৬শত ৪৭ শিশু শিক্ষার্থীর ভবিষ্যত অনিশ্চিত ঝালকাঠিতে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ বরিশালে জবাইকৃত নিন্মমানের মহিষের মাংসসহ আটক ৩ মহান শিক্ষা দিবস উপলক্ষে বরিশালে ছাত্র সমাবেশ পটুয়াখালীর লাউকাঠী-লোহালিয়া নদীতে মাছের পোনা অবমুক্ত
পিরোজপুরে জোয়ারের পানিতে ১৭০ গ্রাম প্লাবিত

পিরোজপুরে জোয়ারের পানিতে ১৭০ গ্রাম প্লাবিত

পিরোজপুর প্রতিবেদক : পিরোজপুর জেলার ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালিগঙ্গা, তালতলা, মধুমতি, কচা, সন্ধ্যা ও বলেশ্বর নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমায় উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ সব নদীর তীরবর্তী এলাকার ১৭০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।
উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দেওয়া তথ্য মতে, জেলার সদর উপজেলার ২৭টি, ইন্দুরকানী উপজেলার প্রায় ২৭টি, কাউখালী উপজেলার ৪০টি, মঠবাড়িয়া উপজেলার ৩টি, ভান্ডারিয়া উপজেলার ২৫টি, নাজিরপুরের ৩০টি, নেছারাবাদ উপজেলার ১৮/২০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এর আগে গত বুধবার (১৯ আগস্ট) প্লাবিত গ্রামের সংখ্যা ছিলে ৭৫টি। জেলা প্রশাসক আবু আলী মোহাম্মাদ সাজ্জাদ হোসেন জানান, প্লাবিত গ্রামগুলো অসহায় মানুষদের সার্বিক সহযোগিতার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানদের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের তালিকা তৈরি করতে বলা হয়েছে। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. বশির আহম্মেদ ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এসএম বায়েজিদ জানান, গত বুধবার উপজেলার ৪টি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর থাকলেও বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) রাতে উপজেলার কমপক্ষে ২৭টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এর মধ্যে কলাখালী ইউনিয়নে ৮টি, শারিকতলায় ৫টি, শংকরপাশায় ৪টি, টোনায় ৬টি ও দুর্গাপুর ইউনিয়নে ৪টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া পৌর শহরের আদর্শপাড়া ও হুলারহাট এলাকা প্লাবিত হয়েছে। কাউখালী উপজেলা চেয়ারম্যান আবু সাঈদ মনু জানান, উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের প্রায় ৪০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। মঠবড়িয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. নাছরিন আক্তার জানান, তার উপজেলার ৩টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।
জেলার ইন্দুরকানী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রুহুল আমীন জানান, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের প্রায় অধিকাংশ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। যার আনুমানিক সংখ্যা ২৭/২৮টি হবে। ভান্ডারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল আলম নবীন জানান, ওই উপজেলার প্রায় ২৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এ সব গ্রামের ১৭শ’ হেক্টর কৃষি জমি প্লাবিত হয়ে ফসল নষ্ট হয়েছে। নাজিরপুর উপজেলার সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. মোশারেফ হোসেন খান জানান, বৃহস্পতিবারের জোয়ারের পানিতে উপজেলা সদরের স্টেডিয়াম সংলগ্ন বেড়িবাঁধ ও রাস্তা ডুবে গেছে। এ ছাড়া উপজেলার শেখমাটিয়া, দেউলবাড়ি, কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়নের প্রায় ৩০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি জানতে জেলার পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক চন্দ্রের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 Dokhinerkhobor.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com